মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:১৭ অপরাহ্ন

এতিমখানার নিবন্ধন বহাল,টাকা আত্মসাত, মানবন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৭৬ জন দেখেছে
চকরিয়ায় শাহ জব্বারিয়া এতিমখানার নিবন্ধন বহাল,এতিমের টাকা আত্মসাত,তদন্ত কর্মকর্তার রহস্যজনক ভূমিকার কারণে মহাসড়কে মানবন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

এসএম হান্নান শাহ চকরিয়া :

Loading...

এতিমখানার নিবন্ধন বহাল ও এতিমের টাকা আত্মসাত ও তদন্ত কর্মকর্তা রহস্যজনক ভূমিকার কারণে কয়েক হাজার নারী পুরুষ গতকাল ২০ নভেম্বর বিকালে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ভাঙ্গারমূখ এলাকায় মাববন্ধনও বিক্ষোভ মিছিল করেছে । উল্লেখ্য যে, কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার পশ্চিম দিগরপানখালী গনি সিকদারপাড়া এলাকার ৯নং ওয়ার্ডে অবস্থিত শাহ জব্বারিয়া এতিমখানার নিবন্ধনটি ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি হাফেজ বশির আহমদ জালিয়াতি করে অন্য একটি প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার ও এতিমের টাকা আত্মসাৎ করায় গত একমাস ধরে উক্ত এলাকায় জনগনের মাঝে ক্ষোভের আগুন জ্বলছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ ওই দপ্তরের বিভিন্ন অফিসে লিখিত অভিযোগ দিলে প্রথম দফায় গত ১৭ নভেম্বর চকরিয়া উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে এসে সরেজমিনে তদন্ত করে। তার পক্ষপাত মূলক ভূমিকার কারণে এলাকাবাসী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টি পুনরায় তদন্তের দাবী জানান। সে প্রেক্ষিতে গতকাল সমাজসেবা অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক হাসান মাসুদ বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সরেজমিনে ঘটনাস্থলে তদন্তে আসার কথা ছিল গতকাল সকাল ১১ টায়। কিন্তু তিনি নির্দিষ্ট সময়ের ৬ ঘন্টা পরও ঘটনাস্থলে তদন্তে না আসায় এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। বলাবাহুল্যযে, ২৫ বছর আগে গনি সিকদার পাড়া এলাকার জনগনের আর্থিক সহায়তায় চকরিয়া পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের দিগরপানখালী গনিসিকদারপাড়ায় শাহ জব্বারিয়া এতিমখানাটি গড়ে উঠে। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে এতিমখানার জন্য তিনটি রেজিষ্ট্রাট দলিল নং ৩৯৩১, ৩৯৩৩ ও ৩৯৬৩ মূলে জমিও দান করা হয়। ওই এতিমখানাটি ১৪ বছর আগে সরকারের ক্যাপিটেশন গ্রান্ট ভুক্ত হয়। ওই সময় গনি সিকদারপাড়া জামে মসজিদের খতিব ছিলেন, হাফেজ বশির আহমদ। এলাকাবাসীর পক্ষে হাফেজ বশিরকে এতিমখানাটি পরিচালনার সভাপতির দায়িত্ব প্রদান করেন। পরে হাফেজ বশির ওই মসজিদ থেকে চলে আসার পর নিজবাড়ি এলাকায় ২ বছর আগে বিতর্কিত জায়গা জবর দখল করে একই ওয়ার্ডের রাজধানী পাড়া এলাকায় রহমানিয়া বালক-বালিকা এতিমখানার নাম দিয়ে ভিন্ন একটি এতিমখানা স্থাপন করে। ওই এতিমখানায় শাহ জব্বারিয়ার নামে ১৪ বছর আগে পাওয়া সরকারী নিবন্ধন নাম্বার কক্স- ২৯৪/০৫ টি ব্যবহার করে ও এতিমদের জন্য আসা সরকারী টাকা লুটপাট করে। এ খবর জানাজানির পর এলাকার মানুষের মাঝে ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ে। মাবন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের পর তারা পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষনা করেন। আগামী ২৫ নভেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে তদন্তের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের ব্যাপারে অভিযোগ ও এতিমখানার নিবন্ধন বহাল ও স্বচ্ছ কমিটির মাধ্যমে এতিম খানাটি পরিচালনার দাবী জানাবেন বলে ঘোষনা দেন।##



শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..





(গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য অধিদপ্তরে নিবন্ধনের জন্য আবেদিত) © All rights reserved © 2019 DailyCoxnews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com