বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৯:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
‘জুনে চালু হচ্ছে সিলেট-কক্সবাজার-চট্টগ্রাম ফ্লাইট’ 20 ফেব্রুয়ারি অগ্নিঝরা ‘একুশে’র  প্রতীক্ষায় ছিল পুরো জাতি কক্সবাজারের সাগর তীরে উঁচু স্থাপনা নয়: প্রধানমন্ত্রী চকরিয়ায় বসতভিটার বিরোধে দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, কলেজ ছাত্রীসহ আহত-২৪ শনিবার আসছেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী খতমে বোখারী অনুষ্ঠান না করার সিদ্ধান্ত নিল জামিয়া পটিয়া মাদরাসা। উহান হাসপাতালের পরিচালকও মারা গেলেন করোনাভাইরাসে কক্সবাজারে ঘুষের কোটি টাকাসহ সার্ভেয়ার আটক ফের সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যা বন্ধের প্রতিশ্রুতি দিলো বিএসএফ চ্যারিটেবল মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি ২৩ ফেব্রুয়ারি

পেঁয়াজের ঝাঁজ আরেক দফা কমলো

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২০
  • ২৮

অবশেষে আরেক দফা কমলো পেঁয়াজের ঝাঁজ। গত বছরের শেষ চার মাস অস্থিরতায় ডুবে ছিল পেঁয়াজ। চলতি বছরের প্রথম সপ্তাহেও ধারাবাহিকতা অব্যাহত ছিল। তবে গত সপ্তাহ থেকে কমতে শুরু করছে নিত্যপ্রয়োজনীয় অত্যাবশ্যক এই পণ্যটি। গত এক সপ্তাহে কেজিতে পেঁয়াজে দাম কমেছে কেজিতে সর্বোচ্চ ২০ টাকা পর্যন্ত। বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পেঁয়াজের উর্ধ্বমুখী প্রবণতার কারণে ব্যবসায়ীরা পর্যাপ্ত পরিমাণ আমদানি করেছেন। এছাড়া দেশীয় পেঁয়াজ ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন বাজারে পৌঁছে গেছে। সেটিও এই মুহূর্তে প্রভাব পড়ছে।
গতকাল চাক্তাই-খাতুনগঞ্জে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আগের তুলনায় পেঁয়াজের সরবরাহ বেড়ে গেছে। আগে সারাদিন ১০-১২ ট্রাক পেঁয়াজ প্রবেশ করতো। এখন বাজারে পেঁয়াজ আসছে ২৫-৩০ ট্রাক। বর্তমানে পেঁয়াজের কেনো সংকট নেই। গতকাল পাইকারিতে মিয়ানমারের পেঁয়াজের কেজি মানভেদে বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকা থেকে ৭০ টাকার মধ্যে। এছাড়া পাকিস্তানের পেঁয়াজের কেজি ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। চীনের পেঁয়াজ ৫০ থেকে ৫৫ টাকা এবং মিশরের পেঁয়াজ ৫৫ থেকে ৬০ টাকা দরে।
ব্যবসায়ীরা জানান, বর্তমানে দেশে তাহেরপুরী, বারি-১ (তাহেরপুরী), বারি-২ (রবি মৌসুম), বারি-৩ (খরিপ মৌসুম), স্থানীয় জাত ও ফরিদপুরী পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। ফলে বছরজুড়েই কোনো না কোনো জাতের পেঁয়াজ উৎপাদন হচ্ছে। দেশে বছরে পেঁয়াজের চাহিদা ২২ লাখ টন। এর মধ্যে ১৮ লাখ টন স্থানীয়ভাবে উৎপাদন করা হয়। আর আমদানি করা হয় বাকি চার লাখ টন। মূলত এই আমদানিকৃত চার লাখ টন পেঁয়াজ বাজারের ওপর খুব বড় প্রভাব ফেলে।
খাতুনগঞ্জের মোহাম্মদীয়া বাণিজ্যালয়ের ব্যবস্থাপক মো. আজিজুর রহমান দৈনিক আজাদীকে বলেন, পেঁয়াজের সরবরাহ বাড়ার কারণে দাম কমছে। গত সাড়ে চার মাস ধরে পেঁয়াজের বাজার খুবই অস্থির ছিল। ফলে পেঁয়াজ আমদানিও বেড়েছে।
এদিকে পাইকারিতে দাম কমায় খুচরা বাজারেও কমেছে পেঁয়াজের দর। গতকাল নগরীর বিভিন্ন খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৫০ থেকে ৭০ টাকায়। খুচরা বিক্রেতা সাদেক রানা জানান, পাইকারিতে দাম কমলে আমরাও দাম কমিয়ে দিই। ক্রেতা আবুল হাশেম জানান, পেঁয়াজের দাম কমছে এটি নিসন্দেহে একটি ভালো খবর। কারণ এতদিন আমরা ভালো মানের পেঁয়াজ ১০০ টাকার নিচে কিনতে পারিনি।

Loading...



শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..





(Registered at the Directorate of Information, Government of the People's Republic of Bangladesh) © All rights reserved © 2019 DailyCoxnews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com