সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১১:৪৯ অপরাহ্ন

চকরিয়ায় দুর্গম পাহাড়ি জনপদের হেব্রন মিশনে ত্রিপুরা কিশোরী ধর্ষণের শিকার, ধর্ষক গ্রেফতার

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৩৩

চকরিয়া প্রতিনিধি::

কক্সবাজারের চকরিয়ায় হেব্রন মিশনে স্কুল পড়ুয়া এক ত্রিপুরা কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাত সাড়ে আটটার দিকে উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি জনপদ বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ৩নম্বর ওয়ার্ডস্থ বিদেশী এনজিও সংস্থা পরিচালিত হেব্রন মিশন নামের একটি ছাত্রাবাসের মহিলা হোস্টেলের পাশে ঘটেছে ধর্ষণের এ ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে ঘটনার রাতে লামা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জড়িত অভিযোগে শিমু বড়–য়া নামের এক যুবককে আটক ও আক্রান্ত ভিকটিমকে উদ্ধার করেছে। আটক মিশু বড়ুয়া চকরিয়া উপজেলার মালুমঘাট এলাকার আইয়ুব খানের ছেলে। লামা থানার ওসি অপ্পেলা রাজু নাহা জানিয়েছেন, আটক শিমু বড়–য়াকে গতকাল শনিবার সকালে চকরিয়া থানায় হস্তান্তর ও ভিকটিম ওই ছাত্রীকে মেডিকেল চেকআপের জন্য বান্দরবান জেলা সদর হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

হেব্রন মিশনের হোস্টেল সুপার গ্রেনার ত্রিপুরা বলেন, ধর্ষণের শিকার ভিকটিম লামা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী। বিকালে বিদ্যালয় ছুটি শেষে হেব্রন মিশনের হোস্টেলে থাকে। ঘটনার রাতে ওই ছাত্রী হোস্টেলের পাশে টিউবওয়েলে পানি আনতে গেলে আক্রমনের শিকার জন। ঘটনার পর পরই লামা থানা পুলিশ আক্রান্ত মেয়ের স্বীকারোক্তি মতে ঘটনায় জড়িত অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে আটক ও ভিকটিমকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যান।

লামা উপজেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ রবিন জানান, ভিকটিমের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে মেডিকেল চেকআপের জন্য তাকে বান্দরবান জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

হাসপাতালের নার্স রেশমি দাশ বলেন, ভিকটিমের শরীরে ধর্ষণের আলামত লক্ষ্য করা গেছে। তবে মেয়েটির প্রিয়ড চলছে, বিষয়টি পরিষ্কার নয়। ডাক্তারি পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে না পাওয়া পর্যন্ত ঘটনার আসল বিষয় জানা যাবে না।

ভিকটিম ওই ছাত্রী জানায়, ঘটনার রাতে তিনি হোস্টেলে পাশে টিউবওয়েলে পানি আনতে যায়। তার সাথে আরমান ত্রিপুরা নামের আরেকজন ছিল। ঘটনার সময় আরমানকে আহত করে শিমু বড়ুয়া তাকে বলপুর্বক ধর্ষন করে।

আরমান ত্রিপুরা আলীকদম উপজেলার কুরুকপাতা ইউনিয়নের অভিরাম মেম্বার এর ছেলে। আটক শিমু বড়ুয়া চকরিয়া উপজেলার মালুমঘাট খ্রিষ্টান মেমোরিয়াল হাসপাতালে কর্মচারী বলে দাবী করে ওই ছাত্রী। ঘটনার আগে শিমু বড়–য়া বমু বিলছড়ি হেব্রন মিশনের হোস্টেলের জন্য চাল নিয়ে এসেছিল বলে জানা গেছে।

আটক শিমু বড়ুয়া পুলিশ হেফাজতে সাংবাদিকদের বলেন, আমি সিগারেট খেতে মিশনের পূর্বপাশে গেলে সেখানে আরমান ত্রিপুরা নামে একজনকে মেয়েটির সাথে আপত্তিকর অবস্থায় দেখি এবং মেয়েটির গায়ের কাপড় এক পাশে পড়ে থাকতে দেখি। সেখানে আরমানের সাথে আরো একজন ত্রিপুরা ছেলে ছিল। আমি মেয়েটির কাপড়চোপড় হাতে নিলে তারা প্রথমে আমার কাছে ঘটনা ধামাচাপা দিতে অনুরোধ করে। এরইমধ্যে ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হলে তারা উল্টো আমাকে ধর্ষক বলে ফাঁসিয়ে দেয়।

হেব্রন মিশনের ব্যবস্থাপক (ম্যানেজার) সুভাষ ত্রিপুরা বলেন, ঘটনাটি চরম আপত্তিকর ও ভীতিকর। মহিলা হোস্টেলে এমন ঘটনা আমাদের আতংকিত করেছে। আমাদের অন্যান্য শিশুরা ভয় পাচ্ছে। দোষীর শাস্তি কামনা করছি।

জানতে চাইলে লামা থানার ওসি অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, ধর্ষণের ঘটনাস্থলটি চকরিয়া উপজেলার বমুবিলছড়ি ইউনিয়নে ড়েছে। একটি অনুষ্ঠান উপলক্ষে আমরা ওইখানে গিয়েছিলাম। অনুষ্ঠান প্যান্ডেলের পিছনে শোরগোল শুনে ঘটনাস্থলে  এগিয়ে যায়। জনতার হামলা থেকে বাঁচাতে ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে শিমু বড়ুয়া নামের একজনকে আটক করে থানা নিয়ে আসি। তবে ভিকটিম দাবী করেছে আটক ব্যক্তি তাকে ধর্ষণ করেছে। তিনি বলেন, আটক ব্যক্তি ও ঘটনার প্রত্যেক্ষদর্শী আরমান ত্রিপুরাকে চকরিয়া থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.হাবিবুর রহমান বলেন, ত্রিপুরা ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় হেব্রন মিশনের ব্যবস্থাপক সুভাষ ত্রিপুরা বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলার এজাহারে আটক শিমু বড়–য়াকে একমাত্র আসামি করা হয়েছে।

ওসি বলেন, মেডিকেল চেকআপ শেষে ভিকটিম ওই ছাত্রী আমাদের হেফাজতে আছেন। আদালতের নির্দেশক্রমে তাকে পরিবারের হাতে হস্তান্তর করা হবে।



শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..





(Registered at the Directorate of Information, Government of the People's Republic of Bangladesh) © All rights reserved © 2019 DailyCoxnews
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com