• বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বিশ্বের প্রথম ভ্যাকসিন আসতে আর ৪ দিন

ডেস্ক রিপোর্ট
আপডেট : শনিবার, ৮ আগস্ট, ২০২০
Screenshot 20200808 141848

বিশ্বের প্রথম ভ্যাকসিন আসতে আর ৪ দিন
করোনায় বিপর্যস্ত বিশ্ব। এ থেকে একমাত্র ভ্যাকসিনের মাধ্যমেই মুক্তি মিলবে। এমন আশায় বসে আছে পুরো বিশ্বের মানুষ। এরই মধ্যে সুখবর দিয়েছে রাশিয়া। দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দাবি, রাশিয়ার হাত ধরে বিশ্বের প্রথম ভ্যাক্সিন আসছে আগামী ১২ আগস্ট। এই ভ্যাকসিন এনে পুরো বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিতে চান রাশিয়ার বিজ্ঞানীরা। সেজন্য অপেক্ষা আর মাত্র চারদিন।

নভেল করোনাভাইরাসের একটি ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগের সব কয়টি ধাপই ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে বলে দাবি করেছে রাশিয়ার সেচেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। এর আগে তারা জানিয়েছিলেন যে, আগামী ১২ থেকে ১৪ আগস্টের মধ্যেই এই ভ্যাকসিন বাজারে। এর মধ্যেই নিশ্চিত করা হয়েছে যে, ১২ আগস্টই এটি চলে আসছে।

রুশ গবেষকদের দাবি অনুযায়ী, বিশ্বের যেসব দেশ ভ্যাকসিন তৈরির দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে, তাদের মধ্যে অন্যতম রাশিয়া। তারা বলছেন, রাশিয়া ছাড়া এখন পর্যন্ত বিশ্বের কোনও দেশই করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ ও সফল করার দাবি করতে পারেনি।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে এই ভ্যাক্সিন তৈরি করেছে গামালেয়া রিসার্চ ইনস্টিউট। শুক্রবার একথা জানিয়ে দেশটির উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওলেগ গ্রিডনেভ বলেন, সাফল্যের সঙ্গে এই ভ্যাকসিন আনা সম্ভব হলে এটিই হবে বিশ্বের প্রথম করোনার ভ্যাকসিন।

আপাতত এই ভ্যাকসিনের তৃতীয় বা শেষ পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে। উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, চিকিৎসার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তি ও বয়স্ক লোকদেরই এই ভ্যাকসিন আগে দেওয়া হবে। মস্কোর তরফ থেকে পরিকল্পনা করা হয়েছে যে, অক্টোবরেই এই ভ্যাক্সিন দেওয়া শুরু হবে। একসঙ্গে অনেক মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে যে, গামালেয়া ভ্যাকসিনটি শর্তসাপেক্ষে আগস্টে নথিভুক্ত করা হবে। এর অর্থ হলো ব্যবহারের জন্য অনুমতি দেওয়া হচ্ছে তবে পাশাপাশি তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ চলবে। ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল যতদিন না সম্পূর্ণ হচ্ছে ততদিন তা শুধুমাত্র চিকিৎসকরাই নিয়ন্ত্রণ করবেন।

যদিও বিজ্ঞানী এবং স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা তাড়াহুড়ো করে ভ্যাকসিন বের করার ব্যাপারে সতর্ক করেছেন। তারা বলছেন, নিরাপত্তা এবং কার্যক্ষমতার ব্যাপারে নিশ্চিত না হয়ে ভ্যাকসিন ব্যবহারের জন্য অনুমোদন করা উচিত নয়।

রাশিয়ান ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের (আরডিআইএফ) প্রধান ক্রিমিল দিমিত্রিভ আগেই জানিয়েছিলেন, প্রথম দেশ হিসেবে রাশিয়া তাদের করোনা টিকা বাজারে আনবে। তিনি বলেন, স্পুতনিক ১-এর মহাকাশ যাত্রা দেখে মার্কিনীরা যেমন অবাক হয়েছিল একই ঘটনা ঘটবে করোনার ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেও। বিশ্ববাসী অবাক হয়ে রাশিয়ার সাফল্য দেখবে।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা