বঙ্গবন্ধু হত্যায় যারা খুশি হয়েছিল তারাও ষড়যন্ত্রে যুক্ত ছিল’ | Daily Cox News
  • বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ১২:৫৫ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বঙ্গবন্ধু হত্যায় যারা খুশি হয়েছিল তারাও ষড়যন্ত্রে যুক্ত ছিল’

ডেস্ক রিপোর্ট
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০
Screenshot 20200813 165757

‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর যারা খুশি হয়ে কলাম লিখেছিল এবং খুশি হয়ে বক্তব্য দিয়েছিল তারা নিশ্চয়ই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল’ বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ‘১৫ আগস্ট : নেপথ্যের কুশীলবদের বিচারে কমিশন চাই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। জাতীয় প্রেসক্লাবে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন এ সভার আয়োজন করে।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু।

আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন- বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল।

প্রধান অতিথির আলোচনায় অংশ নিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর যারা খুশি হয়ে কলাম লিখেছিল তাদের গুলো আসা উচিত। কারা কারা খুশি হয়ে কলাম লিখেছিল খুশি হয়ে বক্তব্য দিয়েছিল? তারা তো নিশ্চয়ই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল। না হলে এত খুশি হলো কেন? এগুলোর তো মুখোশ উন্মোচন হওয়া প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘যারা বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের কুশীলব ছিল তাদের নাম যেন ১০০, ২০০ ও ৫০০ বছর পরের ইতিহাসে লিপিবদ্ধ থাকে। ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করতে হয়, ইতিহাসকে সত্য জানাতে হয়।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ইতিহাসের সত্য উদঘাটনের স্বার্থে এবং ভবিষ্যতে সঠিক ইতিহাস লিপিবদ্ধ করার প্রয়োজনে, আমি, আপনারা এবং দেশের মানুষ মনে করে হত্যাকাণ্ডের কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচনের স্বার্থে একটি করে তাদের মুখোশ উন্মোচন করে যারা জীবিত আছে তাদেরকে ও বিচারের আওতায় আনা।’

তিনি বলেন, ‘এটি না হলে ইতিহাসের সত্য উদঘাটন করা হবে না। ইতিহাসের কাঠগড়ায় আমাদেরকে হয় তো ভবিষ্যতে দাঁড় করানো হতে পারে।’

আলোচনা সভায় আরও অংশ নেন- প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক মহাসচিব আব্দুল জলিল ভূঁইয়া, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব আবদুল মজিদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি এমএ কুদ্দুস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক এ জিহাদুর রহমান, প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান, দফতর সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস চৌধুরী সোহেল, নির্বাহী সদস্য রাজু হামিদ প্রমুখ

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা