সিনহা হত্যা: তদন্ত কমিটির আরো ৭ দিন সময় আবেদন | Daily Cox News
  • মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ১২:৪৬ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সিনহা হত্যা: তদন্ত কমিটির আরো ৭ দিন সময় আবেদন

ডেস্ক রিপোর্ট
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২০ আগস্ট, ২০২০
Screenshot 20200820 191003

বরখাস্ত ওসি প্রদীপকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে না পারায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দিতে আরো ৭ দিনের সময় চেয়ে আবেদন করেছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটির প্রধান মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময় বাড়ানোর জন্য মন্ত্রণালয়ে এই আবেদন করা হয়েছে। এর আগে গত রবিবার (১৬ আগস্ট) বিকালে টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর রোহিঙ্গা ক্যাম্প ইনচার্জ কার্যালয়ে গণশুনানি শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, কমিটির তদন্তের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে এসেছে। সরকার নির্ধারিত সময় ২৩ আগস্টের মধ্যে তারা প্রতিবেদন জমা দিতে পারবেন বলে আশা করছেন।

মিজানুর রহমান আরো বলেন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়ার কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। তবে ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে জিজ্ঞাসাবাদ করাসহ বাকী কাজ সম্পন্ন করতে আরো কিছু সময়ের প্রয়োজন। এজন্য কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময় আরো ৭ কর্মদিবস বাড়ানোর জন্য বৃহস্পতিবার মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তদন্তদলের এ প্রধান।

গত ২ আগস্ট স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাং. শাজাহান আলিকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। এতে সদস্য করা হয়েছিলো, কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসাইন এবং সেনাবাহিনীর রামু ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজার এরিয়া কমান্ডারের একজন প্রতিনিধি।এর পরদিন (৩ আগস্ট) তদন্ত কমিটি পুনর্গঠন করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট করা হয়। এতে কমিটির প্রধান করা হয় চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোহাম্মদ মিজানুর রহমানকে। আর সদস্য করা হয়, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাজাহান আলি, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মো. জাকির হোসেন এবং সেনাবাহিনীর রামু ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজার এরিয়া কমান্ডারের প্রতিনিধি লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ সাজ্জাদকে।

গত ৩ আগস্ট তদন্ত কমিটি আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু করে। এসময় কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য সরকার ৭ কর্মদিবস সময় নির্ধারণ করে দেয়। পরে কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়ার মেয়াদ আরো ৭ কর্মদিবস বাড়ানো হয়েছিলো।

এদিকে, সিনহা হত্যা মামলায় রিমান্ড শেষে চার পুলিশসহ ৭ আসামিকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। আর জব্দ করা আলামত পরীক্ষা-নীরিক্ষা করতে পুলিশের করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) সকালে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ হত্যা মামলায় সাত আসামির রিমান্ড শেষে কক্সবাজার সদর হাসপাতারে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হয়। তারা হলেন: পুলিশের বরখাস্ত এএসআই লিটন মিয়া এবং তিন কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল আল মামুন; পুলিশের দায়ের করা মামলার সাক্ষী নুরুল আমিন, মোহাম্মদ আইয়াজ এবং নেজামুদ্দিন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর দুপুরে আদালতে তোলা হয় তাদের। তদন্তের দায়িত্বে থাকা র‌্যাবের পক্ষ থেকে আরো রিমান্ডের আবেদন না থাকায় তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

আদালতে সিনহা ও তার সহকর্মীদের জব্দ করা ২৯টি ডিভাইস নিয়েও শুনানি হয়। এসব ডিভাইস হেফাজতে নিয়ে পরীক্ষার জন্য পুলিশের করা আবেদন খারিজ করে দেয় আদালত। একই সঙ্গে সব আলামত র‌্যাবকে বুঝিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

র‌্যাবের এডিশনাল এসপি বিধান চন্দ্র কর্মকার বলেন, ‘মাদক ছাড়াও যে যে আইটেমগুলো ছিলো, যেমন অনেক অনেক ডিভাইস। সেগুলো নিয়ে আলাদা তদন্ত চাচ্ছিলো। এই দুইটাই এখন আমাদেরকে বুঝিয়ে দিতে বলেছে আদালত। ডিভাইসগুলো সব আমাদের কাছে আসবে।’

তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যক্তিগত ছবি প্রচার করার অভিযোগে মামলা করার বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাতে পারেননি শিপ্রার আইনজীবী।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ। একে সরাসরি হত্যাকাণ্ড বলে দাবি করছেন সিনহার স্বজনরা। সেনাবাহিনী থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেয়ার পর বিশ্ব ভ্রমণের পরিকল্পনা করছিলেন মেজর সিনহা রাশেদ। ভ্রমণ বিষয়ক একটি ইউটিউব চ্যানেল বানানোর কাজও চলছিলো তার। এরই অংশ হিসেবে সিনহা কক্সবাজারে ভিডিও তৈরির কাজে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে তার পরিবার। পরে পুলিশ দাবি করে, আত্মরক্ষার্থেই গুলি করা হয়েছে রাশেদকে

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা