ঈদগাঁওতে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল : বিপাকে গ্রাহক সমাজ | Daily Cox News
  • বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৫৭ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম :

ঈদগাঁওতে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল : বিপাকে গ্রাহক সমাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বুধবার, ২৬ আগস্ট, ২০২০
অফিস ভবন

কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আওতাধীন, ঈদগাঁও সাব জোনাল অফিসের আওতাভুক্ত বৃহত্তর এলাকার পবিসের গ্রাহক সমাজ মন গড়া বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। যার কোন সুরাহা পাচ্ছেনা গ্রাহকরা। একদিন করোনা মহামারী, অন্যদিকে অতিরিক্ত বিল আদায়। এই দু-সমস্যা নিয়ে মহাটেনশনে বৃহত্তর এলাকার গ্রামীন জনপদের পল্লী বিদ্যুত গ্রাহকগন।

করোনায় লকডাউন চলাকালীন ২/৩ মাস দ্বিগুন বিলের বোঝা বহন করতে হয়েছিল গ্রাহকদেরকে। তারই রেশ কাটতে না কাটতেই ফের অতিরিক্ত বিল নিয়ে সমস্যায় পড়েন ভোক্তভোগী গ্রাহকরা। দৈনিক আয়ের উপর নির্ভরশীল গ্রাহকরা পরিবার পরিজন নিয়ে দুই মুঠো ডাল ভাত খেতে বিপাকে পড়ছেন, সে মুর্হুতে পবিস কতৃপক্ষ ভূতুড়ে বিল যেন মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে। যাতে করে, গ্রাহক রা হতাশ হয়ে প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন। নির্ধারিত বিলের চেয়ে প্রতিমাসে বিদ্যুৎ বিল বৃদ্বি পাচ্ছে।

পাড়ামহল্লা জুড়ে পবিস সংক্রান্ত সমস্যায় জর্জরিত। কেউ আসছেন মিটারে ব্যবহৃত ইউনিটের চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ বিল আসে,কেউবা প্রতি মাসে বিল মনগড়া বা রিড়িং না দেখে বিল করা হচ্ছে, কেউ কেউ বলেন পরিশোধ করা বিল পরবর্তী মাসে বকেয়া হিসেবে তুলে দেয়া হচ্ছে বিলের কাগজে। সেক্ষেত্রেই ঈদগাঁও পবিস কতৃপক্ষের কাছে সন্তোষজনক সুরাহা পাচ্ছেনা গ্রাহকরা। চরম হতাশায় পড়েন তারা। এমনি অভিযোগ কিন্তু ভোক্তভোগী গ্রাহকদের।

আগষ্ট মাসের বিলের কাগজে দেখা যায়, ঈদগাঁওর মাইজ পাড়ার সাবিনা আক্তার নামের এক মিটারে বিল এসেছে মাত্র ২ শত ২২ টাকা। তাঁর বাড়ীতে মটর,ফ্যান ও ফ্রিজ রয়েছেন। তারই পাশ্বর্বতী মোজাম্মেল হক নামের আরেক গ্রাহকের মিটারে বিল এসেছে ১৩ শত ৪৩ টাকা। কিন্তু তাঁর বাড়ীতেও মটর,ফ্রিজ,ফ্যান রয়েছেন। গেল জুলাই মাসে বিদ্যুৎ বিল এসেছিল ৯ শত ৭৪ টাকা। ঠিক একই ভাবে ফজল করিম নামের আরেক গ্রাহকের বিল এসেছেন ১১শত ৮৫ টাকা। সেই বাড়ীতেও সবকিছু রয়েছে। আহমদ নবী নামে আরো এক গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিল এসেছে ৭ শত ৭২ টাকা। বাড়ীতে ফ্যান, মটর ও ফ্রিজ আছে। এভাবেই বিদ্যুৎ বিল বেড়ে যাচ্ছে। দেখার যেন কেউ নেই। ঈদগাঁও গরুর বাজারস্থ ভাড়া বাসায় অবস্থা করা পবিস গ্রাহক নাছির উদ্দিন অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

সচেতন মহল জানান,ঈদগাঁও সাব জোনাল অফিসের মিটার রিড়ার দের বিরুদ্বে ব্যবস্থা গ্রহন করা হউক। তাদের খামখেয়ালীপনায় এহেন অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। বেকায়দায় পড়েছেন গ্রাহক সমাজ।

গ্রামগঞ্জের গ্রাহকরা ক্ষোভের ভাষায় জানান, বিদ্যুৎ অফিসে মন গড়া বিদ্যুৎ বিল কবে বন্ধ হবে? মিটারে যাচাই বাচাই করে বিল করার ব্যবস্থা করা হউক।

ঈদগাঁও সাব জোনাল অফিসের এজিএম শহিদুল আলমের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান মিটার রিড়িং টিক আছে কিনা দেখুন তাছাড়া গ্রাহকরা তেমন আর কোন সুরাহা পাচ্ছেনা।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা