গণধর্ষণের পর প্রাইভেটকার ধুয়েমুছে আলামত নষ্ট করতে চেয়েছেন তারা | Daily Cox News
  • বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

গণধর্ষণের পর প্রাইভেটকার ধুয়েমুছে আলামত নষ্ট করতে চেয়েছেন তারা

নিজস্ব প্রতিবেদন
আপডেট : শনিবার, ৩ অক্টোবর, ২০২০
গণধর্ষণের পর প্রাইভেটকার ধুয়েমুছে আলামত নষ্ট করতে চেয়েছেন তারা

সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটকে রেখে ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে প্রাইভেটকারের ভেতরে গৃহবধূকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করে সাইফুর ও অর্জুনসহ চারজন।

পরে গণধর্ষণের আলামত নষ্ট করতে গাড়িটি আটকে রেখেছিল অভিযুক্তরা। তবে সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরান থানা উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সোহেল রানা এ সময় ছাত্রাবাসে ঢুকে পড়ায় তা করতে পারেননি অভিযুক্তরা।

ছাত্রাবাসের ফটকে দাঁড়িয়ে যখন ভেতরে প্রবেশ করার জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষের অনুমতির অপেক্ষা করছিল পুলিশের একটি দল তখন গাড়িটি ধুয়ে ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমান ও অর্জুন লস্করের দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি থেকে বের হয়েছে এমন তথ্য। শুক্রবার (০২ অক্টোবর) রাতে সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মো. জিয়াদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় সাইফুর রহমান (২৮) ও অর্জুন লস্কর (২৫) স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

তারা দুজনসহ চারজন গৃহবধূকে ছাত্রাবাসে গাড়িতে চারবার ধর্ষণ করেছেন বলে জবানবন্দিতে বলেছেন। তাদের সঙ্গী রবিউল ইসলাম ধর্ষণে সহযোগিতা করেছেন। ধর্ষণকাণ্ড আড়াল করতে গাড়ি থেকে ধর্ষণের আলামত মুছতে চেয়েছিলেন তারা। কিন্তু পুলিশ দেখে পালিয়ে যান বলে জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছেন অভিযুক্তরা।

জবানবন্দিতে সাইফুর ও অর্জুন জানান, তারা দুজনসহ মোট চারজন গৃহবধূকে ছাত্রাবাসের অভ্যন্তরে প্রাইভেটকারের ভেতরে চারবার ধর্ষণ করেন। রবিউল ইসলাম ধর্ষণে সহযোগিতা করেছেন। মোটরসাইকেল দিয়ে দুজন তাদের ছাত্রাবাসে পৌঁছে দেন। তবে রবিউল ধর্ষণ করেননি। পরে গৃহবধূ ও তার স্বামীকে বিদায় করে ধর্ষণকাণ্ড আড়াল করতে গাড়ি থেকে ধর্ষণের আলামত মুছতে চেয়েছিলেন তারা।

শনিবার (০৩ অক্টোবর) বিকেলে গণধর্ষণের মামলায় আরও তিন আসামিকে রিমান্ড শেষে সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মো. জিয়াদুল ইসলামের আদালতে নেয়া হয়। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন মামলার তিন নম্বর আসামি শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, মিসবাউর রহমান রাজন ও আইনউদ্দিন।

শনিবার আরও দুই আসামির ডিএনএর নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সিলেটের এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তারেকুল ইসলাম তারেক ও মাহফুজুর রহমান মাসুমের ডিএনএর নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

শনিবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে পুলিশ পাহারায় তাদের হাসপাতালে নেয়া হয়। এর কিছুক্ষণ পর তাদের সেখান থেকে আবার পুলিশ পাহারায় নিয়ে যাওয়া হয়।

গত বৃহস্পতিবার সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের (ওসিসি) ল্যাবে সাইফুর রহমান, অর্জুন লস্কর, রবিউল ইসলাম, শাহ মো. মাহবুবুর রহমান ওরফে শাহ রনি, মো. রাজন ও আইন উদ্দিনের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোতির্ময় সরকার বলেন, এর আগে গ্রেফতার ছয়জনের ডিএনএ নমুনা নেয়া হয়েছে। শনিবার এজাহারভুক্ত অপর দুই আসামির নমুনা নেয়া হয়েছে।

২৫ সেপ্টেম্বর রাতে এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হন এক গৃহবধূ। রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বামীর কাছ থেকে ওই গৃহবধূকে জোর করে তুলে নিয়ে ছাত্রাবাসের সামনে প্রাইভেটকারের মধ্যেই পালাক্রমে ধর্ষণ করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় কলেজের সামনে তার স্বামীকে আটকে রাখেন দুজন।

এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে শাহপরান থানায় মামলা করেন। মামলায় ছাত্রলীগের ছয় নেতাকর্মীসহ অজ্ঞাত তিনজনকে আসামি করা হয়। গণধর্ষণে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মীরা সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক রণজিৎ সরকারের অনুসারী।

এ ঘটনায় র‌্যাব ও পুলিশ এজাহারভুক্ত ছয় আসামিসহ সন্দেহভাজন আরও দুজনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতার মোট আটজনের সবাইকে ধাপে ধাপে রিমান্ডে নেয় পুলিশ। এর মধ্যে তিনজন শুক্রবার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা