সিনহা হত্যা মামলার অগ্রগতিতে তীক্ষ্ণ নজর থাকবে | Daily Cox News
  • বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সিনহা হত্যা মামলার অগ্রগতিতে তীক্ষ্ণ নজর থাকবে

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২০
সিনহা হত্যা মামলার তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে হাইকোর্টে রিট

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের বিচারকাজ পর্যবেক্ষণে রাখতে বলেছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়–সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। এ ঘটনা নিয়ে যাতে কোনো ধনের গুজব রটানো না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে বলেছে কমিটি।

আজ বুধবার জাতীয় সংসদ ভবনে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়–সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে আলোচনা হয়।

বৈঠক সূত্র জানায়, সিনহা হত্যাকাণ্ড নিয়ে বৈঠকে লিখিত প্রতিবেদন দেয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। তাতে বলা হয়, পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত খুব কাছ থেকে সিনহাকে লক্ষ্য করে গুলি করেন। গুলি করার ২০-২৫ মিনিট পর টেকনাফ থানার সে সময়কার ওসি প্রদীপ কুমার দাস ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তিনি অত্যন্ত নির্মম ও অমানবিকভাবে পা দিয়ে চেপে ধরে মাটিতে লুটিয়ে পড়া সিনহার মৃত্যু নিশ্চিত করেন বলে জানা যায়। ঘটনার বিবরণ তুলে ধরে আরও বলা হয়, এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা পূর্বপরিকল্পনার ইঙ্গিত দেয়। চার সদস্যের যৌথ তদন্ত কমিটির পাশাপাশি হত্যার কারণ উদ্‌ঘাটনে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকেও একটি তদন্ত আদালত গঠন করা হয়েছে। যৌথ তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যে প্রতিবেদন দিয়েছে।

গত ৩১ জুলাই কক্সবাজারের টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা। এ ঘটনায় তাঁর বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। পরে সিনহাকে পুলিশ বাহিনী থেকে তাঁকে বরখাস্ত করা হয়।

এদিকে সংসদীয় কমিটিতে দেওয়া প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় সূত্র ও বিভিন্ন মাধ্যম থেকে সিনহা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে কক্সবাজারের সাবেক এসপি এ বি এম মাসুদ হোসেনের সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া যায়। তিনি ঘটনার তদন্তের শুরু থেকেই অসহযোগিতা ও বাধা দিয়ে আসছেন বলে জানা যায়। অবশ্য পরে এসপিকে কক্সবাজার থেকে বদলি করা হয়।

বৈঠক শেষে কমিটির সদস্য ফারুক খান প্রথম আলোকে বলেন, সিনহা হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি বিচারাধীন। তাই এ বিষয়ে কমিটি খুব বেশি আলোচনা করেনি। কমিটি বলেছে, কীভাবে মামলা অগ্রসর হচ্ছে তার ওপর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখতে হবে। কেউ যাতে ফায়দা লুটতে না পারে, গুজব রটাতে না পারে, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা সবকিছু পর্যবেক্ষণ করছে।

সংসদীয় কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে বৈঠকে অংশ নেন মুহাম্মদ ফারুক খান, মো.ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহ, মোতাহার হোসেন, মো. নাসির উদ্দিন, মো. মহিববুর রহমান ও নাহিদ ইজাহার খান

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেসবুকে আমরা