• রবিবার, ৩১ মে ২০২০, ০১:০৩ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
নোটিশ :
আমাদের সাইট-এ প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে যোগাযোগ করুন>>01865-115787>>>01819785496

উখিয়ার সোনাইছড়িতে সন্ত্রাসীদের হামালায় আহত ৩

শহিদুল ইসলাম উখিয়া (কক্সবাজার)
আপডেট : রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০

উখিয়া উপজেলার জালিয়া পালং সোনায়ছড়ি এলাকায় দেশে চলমান করোনাভাইরাস প্রতিরোধের জন্য লকডাউনের সময় ক্রিকেট খেলা বন্ধ করতে বলায় তিন যুবককে চুরিকাঘাত করে রক্তাক্ত করেছে ইউনিয়নের নূরুলআবছার নান্নুর নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনী।

গতকাল ২৯ মার্চ সন্দা ৭টার দিকে উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের সোনাই ছড়ি গ্রামের উত্তর পাড়া এলাকায় এঘটনা ঘটে। ঘটনায় দুই ভাইসহ তিন জন গুরুতর অাহত হয়েছে। আহতরা হলেন, সোনাই ছড়ি গ্রামের ছৈয়দ আলমের পুত্র দেলোয়ার হোসাইন (৩০), মোবারক হোসাইন (২৪) ও তারেক হোসাইন (১৭) আহতদের মধ্যে মোবারক হোসাইনের অবস্থা আশংকা জনক বলে তার পরিবার নিশ্চিত করেছে।

আহতদের এলাকাবসী উদ্ধার করে প্রথমে উখিয়া হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে কতর্ব্যরত চিকিৎসক।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে সোনাই ছড়ি গ্রামের আলি হোসেন এর পুত্র নুরুল আবছার প্রকাশ (সন্ত্রাসী নান্নু, করোনার এই মহামারিতে সোনাই ছড়ি খেলার মাঠে একটি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট এর আয়োজন করে। এই মহামারি অবস্থার মধ্যে ক্রিকেট খেলা বন্দ রাখার জন্য একই এলাকার মোবারক হোসাইন অনুরোধ করলে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এক সময় নুরুল আবছার নান্নু হুমকি দিয়ে পেইজ বুকে স্ট্যাটাস দেয়। পরে মোবারক হোসেন খেলার বন্ধের দাবী জানিয়ে উখিয় থানাকে অবহিত করে। উখিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে তৎক্ষনাৎ পদক্ষেপ নিয়ে খেলা বন্ধ করে দেয় বলে আহত দেলোয়ার জানায়।

তিনি জানান, আলী হোসেনের পুত্র নুরুল আবছার নান্নু, আহমদ শরিফ ও পিতা আলী হোসেন সহ সঙ্গবদ্ধ হয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় রাম দা, লোহার রট ও লোহার চেইন দিয়ে এলো পাতাড়ি হামলা চালিয় বীরদর্পে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে যায় বলে অভিযোগ করেন।

এব্যাপারে জালিয়াপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এ ব্যাপারে উখিয়া থানার তদন্ত ওসি নুরুল ইসলাম সত্যতা স্বীকার করে বলেন এখনো পযর্ন্ত কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি ।



ফেসবুকে আমরা