• শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:২৮ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
ব্রেইন টিউমার আক্রান্ত তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী টুম্পাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন! ফেসবুককে রোহিঙ্গাবিরোধী তথ্য দিতে নির্দেশ উখিয়ায় পাহাড়ের মাটি পাচারকালে ডাম্পার সহ আটক ১ বিজিবির অভিযানে সাড়ে ৪ কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা উদ্ধার রাজধানীর প্রতিটি খাল সংরক্ষণ করা হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী করোনায় আবারও বাড়ল শনাক্ত ও মৃত্যু কক্সবাজারে ২১ কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা নিয়ে আটক ৫ রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক তাদের অবশ্যই ফিরে যেতে হবে : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের জন্য ১৫৮ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র উখিয়া প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সাঃ সম্পাদকের দায়িত্ব অর্পণ শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

উখিয়ায় ইয়াবা পাচারের মূলহোতা রোহিঙ্গা, ফের আটক-৩

রিপোর্টার নাম :
আপডেট সময় : রবিবার, ৯ মে, ২০২১
ইয়াবা

এম ফেরদৌস (উখিয়া কক্সবাজার)

কক্সবাজার জেলার রামু থানার খুনিয়াপালং হিমছড়ি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৯ হাজার,৭৮০ পিস ইয়াবাসহ তিন রোহিঙ্গা মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৫।

আটককৃত হলেন,থাইংখালী ১৯ নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কাদির হোসেনের ছেলে আজাহার হোসেন(২৮), তার সহযোগি একই ক্যাম্পের মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে হামিদ হোসেন ও বদিরনারের ছেলে সৈয়দ হোসেন (৩৫)।গ্রেফতারকৃত আসামীদের পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে কক্সবাজার জেলার রামু থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

শনিবার (৮ মে) রাত ১০ টার দিকে র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ান (র‍্যাব-১৫) হিমছড়ি এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করেন।

এক প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যামে কক্সবাজার র‍্যাবের সহকারী পরিচালক ( মিডিয়া অফিসার) আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান র‌্যাব-১৫, কক্সবাজার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক কারবারী কক্সবাজার জেলার রামু থানাধীন খুনিয়াপালং হিমছড়ি ইসমাইল স্টোরের সামনে প্রধান সড়কের উপর মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১৫ এর একটি চৌকশ আভিযানিক দল উপরোক্ত স্থানে পৌঁছালে র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে কতিপয় মাদক কারবারী পালিয়ে যাওয়ার সন্দেহজনকভাবে আটক করা হয়। পরবর্তী উপস্থিত স্বাক্ষীদের সম্মুখে ধৃত আসামীদের হাতে থাকা শপিং ব্যাগ তল্লাশী করে মোট নয় হাজার সাতশত আশি পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে ধৃত আসামীরা স্বীকার করে যে, তারা দীর্ঘদিন যাবত টেকনাফের সীমান্তবর্তী এলাকা হতে ইয়াবা ট্যাবলেট সংগ্রহ করে কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রয় করে আসছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর