• বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:১২ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল হক কোম্পানীর প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

ডেস্ক রিপোর্ট, ডেইলী কক্স নিউজ।
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২১
চেয়ারম্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক::

গতকাল স্থানীয় পত্রিকা, দৈনিক আজকের দেশবিদেশ, দৈনিক ইনানীসহ অনলাইন প্রোর্টাল সিবিএন এ প্রকাশিত শপথের আগেই ইউপি ভবনে নব নির্বাচিত চেয়ারম্যানের কার্যক্রম এ শিরোনামের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা দিয়েছেন খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল হক কোম্পানী৷

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) তিনি এ প্রতিবাদ জানান৷

নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল হক কোম্পানী সাংবাদিকদের জানান, আমাকে হয়রানী এবং প্রশাসনের কাছে আমাকে দোষী করতে মিথ্যা সাংবাদিকদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে আমার বিরুদ্ধে নিউজ করা হয়েছে৷ অতচ খুনিয়াপালং বাসী গত ১১ নভেম্বর স্বতঃপূর্তভাবে আমাকে ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন৷

তিনি আরো জানান, সাবেক চেয়ার আব্দুল মাবুদ আমাকে হত্যা সহ আমার জীবন নিয়ে সড়যন্রে লিপ্ত হয়েছে৷ আমি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে সর্ব প্রথম খুনিয়াপালং বাসীর উন্নয়নে এবং সহযোগিতা করার জন্য বুধবার ২৪ নভেম্বর দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে গিয়ে একটি বেসরকারি সংস্থার অনুদানের অর্থ বিতরণ করি৷ বাংলাদেশের আইন অনুযায়ি ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়ার এবং ইউনিয়নের মানুষকে সহযোগিতা করার সবার অধিকার আছে৷ আমি মানুষের পাশে থেকে সবসময় কাজ করে যাই সেটা সাবেক চেয়ারম্যান এবং তার অনুসারীরা চাইনা৷

চেয়ারম্যান আবদুল হক কোম্পানী জানান- হেলভেটাস নামক একটি বেসরকারি সংস্থা ১৭৫ জন শ্রমিকের মাঝে ৮ হাজার টাকা করে অনুদানের অর্থ বিতরণের জন্য বুধবার দুপুর ২ টায় পরিষদে আমাকে দাওয়াত দে৷ এনজিও কর্তৃপক্ষ যখন পরিষদে আসে তখন সচিবসহ আমাকে তারা ইউনিয়ন পরিষদে আসার জন্য আমান্ত্রন জানাই৷ আমি সেই আমন্ত্রন গ্রহন করে পরিষদে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে পরিষদে গিয়ে এসব অনুদানের অর্থ বিতরণ করি৷

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা জানিয়েছেন- বিষয়টি আমি জেনেছি, কিন্তু একজন জনপ্রতিনিধি বা সাধারণ মানুষ পরিষদে যাওয়ার অধিকার আছে৷ তাই বিষয়টি নিয়ে এইভাবে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা ভাল না আমি মনে করি৷

নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল হক জানিয়েছেন- ‘পরিষদ ভবন দখল করে কার্যক্রম চালানোর বিষয়টি সত্য নয়। একটি বেসরকারি সংস্থার আমন্ত্রণে আমি অনুদানের অর্থ বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করার জন্য গিয়েছিলাম। আমি সেখানে কিছু কথা বলে চলে আসি। পরিষদ তো সবার জন্য উন্মুক্ত। এখানে যেতে তো কারো বাধা নেই। কয়েকদিন পরেই তো আমাকে এখানে স্বসম্মানে দায়িত্ব দিয়ে চেয়ারে বসানো হবে। তাহলে দখল করার তো প্রশ্নই আসে না’।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর