• রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
ব্রেইন টিউমার আক্রান্ত তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী টুম্পাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন! ফেসবুককে রোহিঙ্গাবিরোধী তথ্য দিতে নির্দেশ উখিয়ায় পাহাড়ের মাটি পাচারকালে ডাম্পার সহ আটক ১ বিজিবির অভিযানে সাড়ে ৪ কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা উদ্ধার রাজধানীর প্রতিটি খাল সংরক্ষণ করা হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী করোনায় আবারও বাড়ল শনাক্ত ও মৃত্যু কক্সবাজারে ২১ কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা নিয়ে আটক ৫ রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক তাদের অবশ্যই ফিরে যেতে হবে : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের জন্য ১৫৮ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র উখিয়া প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সাঃ সম্পাদকের দায়িত্ব অর্পণ শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

বিজয় দিবসে ১৬ বারের মতো বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিচ্ছেন লিপটন

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি:
আপডেট সময় : বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০
বিজয় দিবসে ১৬ বারের মতো বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিচ্ছেন লিপটন

আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। ১৬তম বারের মতো বঙ্গোপসাগরের সাঁতার দিতে যাচ্ছেন লিপটন সরকার। টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথের এ স্রোতধারাটি নাম বাংলা চ্যানেল। টানা ১৫ বারের মতো এ চ্যানেল জয় করার রেকর্ডধারি একমাত্র সাঁতারু তিনি।

বিজয় দিবসের দিন সাঁতার প্রসঙ্গে লিপটন সরকার বলেন, তার এবারে সাঁতার বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ সূর্যসন্তানের স্মৃতির প্রতি উৎসর্গ করতে চান।

২০০৬ সাল থেকে প্রতিবছর তিনি সাঁতরে এই চ্যানেল অতিক্রম করছেন। সর্বশেষ গত ৩০ নভেম্বর ১৫তম ফরচুন বাংলা চ্যানেল সাঁতার ২০২০–এ অংশ নিয়ে টানা ১৫ বারের মতো এ চ্যানেলের একমাত্র জয়ী করার রেকর্ড গড়েছেন তিনি। বিজয় দিবসের সাঁতারে নিজেই নতুন রেকর্ড গড়তে যাচ্ছেন।

এবার এ সাঁতারের আয়োজন করছে ষড়জ অ্যাডভেঞ্চার ও এক্সট্রিম বাংলা। বাংলা চ্যানেল সাঁতার শুরু হয় টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ জেটি থেকে। ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার দূরত্ব পাড়ি দিয়ে সাঁতারুকে পৌঁছাতে হয় সেন্টমার্টিন দ্বীপে। লিপটন সরকার এবার সাঁতার শুরু করবেন টেকনাফে শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিমপাড়া সমুদ্র সৈকত থেকে।

সেখান থেকেও সেন্ট মার্টিনের দূরত্ব ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার। বুধবার সকালে তিনি সাঁতার শুরু করেন।
এ চ্যানেলে নিজের ১৬তম সাঁতার নিয়ে লিপটন সরকার আরও বলেন, ‘১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসকে স্মরণীয় করে রাখতে এবং বাংলা চ্যানেলে দূরপাল্লার সাঁতারে জনপ্রিয় করতে আমার এই উদ্যোগ। আমরা চাই এ ধরনের অ্যাডভেঞ্চারে তরুণ প্রজন্ম আরও বেশি করে আগ্রহী হয়ে উঠুক। এ ধরনের খেলাধূলায় থাকলে সুস্বাস্থ্য যেমন নিশ্চিত হবে, তেমনি মাদকাসক্তিসহ ভয়াবহ নেশা থেকে তরুণ প্রজন্ম দূরে থাকবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর