• বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ভাসমান নয়, প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তই যেন অনুদানের সুবিধা পায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট সময় : সোমবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২০
ভাসমান নয়, প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তই যেন অনুদানের সুবিধা পায়

ভাসমান নয়, প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিই যেন অনুদানের সঠিক সুবিধা পায় এবং তা নিশ্চিত করতে হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

সোমবার (২৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নগর ভবনের বুড়িগঙ্গা হলে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি ও জার্মান রেডক্রস কর্তৃক আয়োজিত ‘কোভিড-১৯ এ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর মাঝে মানবিক সহায়তা প্রদান কার্যক্রম’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

মেয়র তাপস বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের ফলে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে, ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশনের পরিধি বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু অনুদানের অর্থ শুধু মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে প্রদান না করে, এই কার্যক্রমে ব্যাংকগুলোকেও সংযুক্ত করা যায় কি না- তা আয়োজকদের ভেবে দেখার অনুরোধ করছি। কারণ, শুধু মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে সেবা প্রদান করা হলেও প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির পরিবর্তে ভাসমান ব্যক্তির কাছে পৌঁছানোর আশঙ্কা থেকে যায়।’

কোভিড-১৯ এর কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য গরিব মানুষের মাঝে সরাসরি আর্থিক অনুদান প্রদান কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়ে মেয়র বলেন, ‘ঢাকাতে অনেক ভাসমান লোক আসা-যাওয়া করে। সেখানে শুধু মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে তাদেরকে সরাসরি অনুদান প্রদান করছেন। সেখানে একটি তারতম্য ঘটার সুযোগ থেকে যায়। কিন্তু এই অনুদান প্রদান কার্যক্রম শুধু ঢাকাবাসীর জন্য করা হয়েছে, ঢাকায় যারা গরিব, দুঃস্থ তাদের জন্য করা হয়েছে, ঢাকার বস্তিবাসীদের জন্য করা হয়েছে, ঢাকায় যারা ভোটার তাদের জন্য করা হয়েছে। ঢাকায় যারা বসবাস করে তাদের কোনো না কোনো ব্যাংকে হিসাব থাকেই। তাই এই কার্যক্রমে শুধু মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসে সীমাবদ্ধ না রেখে সকল বিকল্প ব্যবস্থা রাখা উচিৎ। কারণ, এখন ব্যাংকগুলো শুধু শাখা করে না, ব্যাংকগুলো মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমেও তাদের সেবা পৌঁছে দেয়। ব্যাংকগুলো উপশাখা করে, ব্যাংকগুলো এজেন্ট ব্যাংকিং করে।’

তিনি বলেন, ‘ঢাকায় ২ কোটি ১০ লাখ মানুষের বসবাস। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নতি ও অগ্রগতির কারণে দারিদ্র্যের হার অনেক কমেছে। কিন্তু এরপরও ঢাকায় যারা বসবাস করেন তাদের মধ্যে একটি বড় অংশই দুঃস্থ-গরিব, দারিদ্র্য সীমার নিচে বসবাস করে। তাই যারা ঢাকার ভোটার, ঢাকার বস্তিবাসী, ঢাকার দুঃস্থ-দরিদ্ররা যাতে এই সুবিধার আওতায় আসে, সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় তদারকির অনুরোধ জানাই।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর