• শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
উখিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আর্মড পুলিশের এএসআই নিহত আওয়ামীলীগ বাংলাদেশের রাজনীতিতে সবসময়ই অত্যন্ত শক্তিশালী ও গুরুত্বপূর্ণ দল -কৃষিমন্ত্রী জয়পুরহাটে দুই শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তির কারাদণ্ড মৌলভীবাজারে শ্রীমঙ্গলে রেলের জমি উদ্ধারে বাধা, রেলের এক্সাভেটরে দুর্বৃত্তের আগুন শেষ হলো সংসদের চতুর্দশ অধিবেশন দেশে করোনায় আরও ৫১ জনের মৃত্যু ইভ্যালির সিইও রাসেল গ্রেপ্তার প্রবাস থেকে স্বামী আসার খবরে প্রেমিকের হাত ধরে পালালো এক সন্তানের জননী কোটবাজারে চাকবৈঠার ইব্রাহিম বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ র‍্যাবের হাতে আটক রত্নাপালং ইউপি নির্বাচন : চেয়ারম্যান পদে জনপ্রিয়তার শীর্ষে ইমাম হোসেন

মৃত্যুর আগে হামলাকারীদের নাম বলে গেলেন পুলিশের সোর্স মামুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট সময় : রবিবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২১
মৃত্যুর আগে হামলাকারীদের নাম বলে গেলেন পুলিশের সোর্স মামুন

খুলনার দিঘলিয়ার ফরমায়েশখানার বার্মাশিল খেয়াঘাট এলাকায় সন্ত্রাসীদের হামলায় মামুন (২৬) নামে পুলিশের এক সোর্স নিহত হয়েছেন। মৃত্যুর আগে হামলাকারীদের নাম ও ঘটনার বর্ণনা দেন তিনি। এরকম একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। মামুন সেনহাটি শরিষাপাড়া এলাকার মো. ইউসুফের ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, শনিবার (২৩ জানুয়ারি) রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টার দিকে সেনহাটি শরিষাপাড়া এলাকার মামুনকে ধরে নদীর তীরে পরিত্যক্ত পাট গোডাউনের ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। সেখানে তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে তাকে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে এলাকাবাসী মামুনকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেয়ার পথে রাত সাড়ে ৩টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

সকালে খবর পেয়ে দিঘলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান উল্লাহ চৌধুরীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত জব্দ করেন।

এলাকাবাসী জানায়, পরিবারসহ খুলনা শহরের কাশিপুর এলাকায় থাকতেন মামুন। সেখানে ডিবি পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করতেন তিনি। পরে মামুন পরিবারসহ দিঘলিয়ার সেনহাটি গ্রামের শরিষাপাড়া এলাকায় বাড়ি করে বসবাস করছিলেন।

কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, মামুন মাদককারবারির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। মাদক সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে বলে ধারণা এলাকাবাসীর।

এদিকে মৃত্যুর আগে আহত মামুনের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সেখানে তার ওপর হামলাকারী হিসেবে স্থানীয় রিপন ও কানা মাঝির নাম উল্লেখ করতে শোনা যায়।

তিনি ভিডিওতে বলেন, ‘কানা মাঝি নামে একজন রিপনকে দিয়ে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আমাকে একটি ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে মুখে টেপ মেরে, হাত-পা বেঁধে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কোপায় ও জিআই পাইপ দিয়ে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দেয় তারা। আমার অবস্থা খুব খারাপ।’

দিঘলিয়া থানার ওসি আহসান উল্লাহ চৌধুরী বলেন, আজ (রোববার) সন্ধ্যায় নিহত মামুনের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। তবে পুলিশ হত্যাকারীদের আটকে অভিযান শুরু করেছে।

এর আগে গত ১২ জানুয়ারি দিবাগত রাত ১১টার দিকে খুলনা মহানগরীর লবণচরা থানার বান্দাবাজার এলাকায় মাদক বিক্রেতাদের গ্রেফতারকালে ছুরিকাঘাতে শরিফুল (৩৫) নামে গোয়েন্দা পুলিশের এক সোর্স নিহত হন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর