• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:১৫ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মেসির গোলও জেতাতে পারলো না আর্জেন্টিনাকে

রিপোর্টার নাম :
আপডেট সময় : সোমবার, ১৪ জুন, ২০২১
AFP vs CHI

ফুলটাইম স্কোর: আর্জেন্টিনা ১-১ চিলি

কোপা আমেরিকায় আগের চার বারের দেখায় আর্জেন্টিনার দুই জয়ের বিপরীতে চিলির জয় একটি। তবে বাকি একটি ড্র ম্যাচটাই আর্জেন্টিনাকে হয়ত এখনো কাঁদায়, টাইব্রেকারে কোপার ফাইনালে হেরে সেবার যে কেঁদেছিলেন মেসিও। দুইবার কোপার ফাইনালে চিলির কাছে হারা আর্জেন্টিনা যে চিলির সাথে জয়ের জন্য উন্মুখ থাকবে সেটা প্রত্যাশিতই ছিল। লিওনেল মেসির দুর্দান্ত ফ্রি-কিকে এগিয়ে গেলেও এদুয়ার্দো ভারগাসের গোলে কোপা আমেরিকার গ্রুপ এ’র প্রথম ম্যাচ শেষ হয়েছে ১-১ সমতায়।

শুরুটা বেশ আক্রমণাত্মকভাবে করলেও চিলির সেই আক্রমণের ধারা বেশিক্ষণ বজায় থাকেনি। খুব দ্রুতই খেলা গুছিয়ে নিয়ে আর্জেন্টিনা বরং চেপে বসে চিলির ওপর। ১২ মিনিটের মাথায় দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিলেন লাওতারো মার্টিনেজ, বাম প্রান্ত থেকে জিওভান্নি লো সেলসোর বাড়ানো দারুণ লো ক্রসে সংযোগ না হওয়ায় একদম উড়িয়ে মারেন তিনি। এর কিছুক্ষণ পরেই বাঁ প্রান্তে দারুণ পাসিংয়ের পসরা সাজিয়ে লো সেলসো বক্সের মাথা থেকে ব্যাকপাস দেন নিকোলাস গঞ্জালেজকে। গঞ্জালেজের জোরালো নিচু শট বেশ দক্ষতার সাথেই প্রতিহত করেন চিলি অধিনায়ক গোলকিপার ক্লদিও ব্রাভো।

লো সেলসোর সৃজনশীলতা এদিন বেশ ভুগিয়েছে চিলিয়ানদের। দারুণ সব রান আর পাসে আর্জেন্টিনার মিডফিল্ডের মধ্যমণি হয়ে ছিলেন এদিন তিনি। ১৮ মিনিটের মাথায় আবারও দেখা যায় সেই লো সেলসো-গঞ্জালেজ সংযোগ। লো সেলসোর দারুণ থ্রু থেকে দুর্বল ফিনিশে গঞ্জালেজ বল তুলে দিয়েছেন ব্রাভোর কোলে। স্রোতের বিপরীতে গিয়ে ২৫ মিনিটের মাথায় অবশ্য সুযোগ বের করেছিলেন চিলিয়ান নাম্বার নাইন মেনেসেস, মার্টিনেজ কোয়ারতাকে কাটিয়ে বের হয়ে তার নেওয়া নিচু শটটা অবশ্য পোস্টের ধার ঘেঁষে বেরিয়ে গেছে।

আর্জেন্টিনার উপর্যুপরি আক্রমণের ফল অবশ্য এসেছে ৩৩ মিনিটের মাথায়। সেই লো সেলসোই প্রতি আক্রমণে বের হয়ে গেলে পিছন থেকে তাকে ফেলে দেওয়া হয়। সরাসরি ফ্রি কিক থেকে গোলের চিন্তা হয়ত অবশ্য অনেকেই করতেন না ওখান থেকে। কিন্তু ফ্রি কিকের এক প্রান্তে যে ছিলেন মেসি। আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে তার সর্বশেষ চার গোল এসেছে পেনাল্টি থেকে। তবে মেসির সামনে ওসব যে নেহাতই পরিসংখ্যান সেটা তিনি প্রমাণ করলেন আরও একবার। দেয়ালের উপর দিয়ে সাবলীলভাবে তুলে দিয়ে সরাসরি ফ্রি-কিক থেকে গোল দিয়েছেন মেসি। এই গোলে মেসি ছাড়িয়ে গেছেন গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতাকে, প্রতিযোগিতামুলক ম্যাচে তার গোলসংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৩৯ এ।

মেসির সেই দারুণ গোলে উজ্জীবিত হয়েই কিছুক্ষণের মধ্যেই দারুণ সুযোগ পেয়েছিলো আর্জেন্টিনা। তবে ডান প্রান্ত থেকে মন্তিয়েলের বাড়ানো নিচু ক্রসে বেশ দৃষ্টিকটু মিস করেন লাওতারো মার্টিনেজ। প্রথমার্ধ তাই ১-০ ব্যবধানে এগিয়েই শেষ করে মেসিরা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই অবশ্য ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দেয় চিলি। পুল্গারের থ্রুতে ভারগাস ফাঁকা হয়ে গেলেও পোস্ট ছেড়ে বেরিয়ে এসে কোন বিপদ ঘটতে দেননি এমি মার্টিনেজ। বিপদ অবশ্য ঘটে যায় পরের মিনিটেই। ভারগাসের শট এমি মার্টিনেজ ঠেকিয়ে দিলে ফিরতি বল জালে জড়ানোর চেষ্টায় ভিদাল এগিয়ে আসতেই বেপরোয়াভাবে পা এগিয়ে দেন তালিয়াফিকো- ফলাফল ভারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পেনাল্টি। সেখানেও নাটক! আগের পাঁচবারই পেনাল্টি থেকে গোল করা ভিদালের পেনাল্টি দারুণভাবে নিজের ডানে ঝাঁপিয়ে বাচিয়ে দেন এমি মার্টিনেজ। তবে ফিরতি বল এবার ঠিকই জালে জড়ান ভারগাস, বিফলে যায় এমি মার্টিনেজের দারুণ সেভ।

এরপর অবশ্য দুই দলই গোলের সুযোগ তৈরি করলেও গোলের দেখা পায়নি। ডি মারিয়া আর এজেকিয়েল প্যালাসিয়স নামায় আর্জেন্টিনা ছিল বেশ সপ্রতিভ। ৭৯ মিনিটের মাথায় দারুণ সুযোগ পেয়েছিলেন ওই প্যলাসিয়সই, মেসির বাড়ানো লম্বা বলে মাথা লাগালেও রাখতে পারেননি গোলমুখে। গোল পেতে মরিয়া হয়ে লিওনেল স্কালোনি এরপর নামিয়েছেন আগুয়েরোকেও। অতিরিক্ত পাওয়া সাত মিনিটে মুহুর্মুহু আক্রমণ করেও গোলের দেখা আর পাননি মেসিরা। কোপায় মেসিদের যাত্রা শুরু হয়েছে তাই পয়েন্ট ভাগাভাগি করেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর