• রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
ব্রেইন টিউমার আক্রান্ত তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী টুম্পাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন! ফেসবুককে রোহিঙ্গাবিরোধী তথ্য দিতে নির্দেশ উখিয়ায় পাহাড়ের মাটি পাচারকালে ডাম্পার সহ আটক ১ বিজিবির অভিযানে সাড়ে ৪ কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা উদ্ধার রাজধানীর প্রতিটি খাল সংরক্ষণ করা হবে: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী করোনায় আবারও বাড়ল শনাক্ত ও মৃত্যু কক্সবাজারে ২১ কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা নিয়ে আটক ৫ রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক তাদের অবশ্যই ফিরে যেতে হবে : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের জন্য ১৫৮ মিলিয়ন ডলার দেবে যুক্তরাষ্ট্র উখিয়া প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সাঃ সম্পাদকের দায়িত্ব অর্পণ শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর, স্বস্তি ফিরবে কক্সবাজারে?

সুজাউদ্দিন রুবেল,
আপডেট সময় : বুধবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২০
রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে আশ্রয় দিলেও মিয়ানমারেই ফিরতে হবে

নোয়াখালীর ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরে কক্সবাজারের সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পরিবেশের উপর চাপ কমবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। পাশাপাশি প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে সরকার এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ভূমিকা রাখার আহ্বান তাদের।

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে প্রায় পাঁচ লাখের বেশি স্থানীয় মানুষের বসবাস। কিন্তু ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর এই দুই উপজেলায় বসবাস করছে মিয়ানমার থেকে আসা বাড়তি ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা নাগরিক। যে কারণে উজাড় হয়েছে বন, পাহাড় ও কৃষি জমি। একই সঙ্গে গত তিন বছর ধরে নানা সমস্যায় জর্জরিত স্থানীয় বাসিন্দারা।
তাই স্থানীয়দের উপর চাপ কমাতে সরকার এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের উদ্যোগ নিয়েছে। গত চার ডিসেম্বর স্বেচ্ছায় রাজি হওয়ায় ১৬৪২ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তর করে সরকার।
এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে স্থানীয়রা বলছেন, এতে কক্সবাজারের সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পরিবেশের উপর চাপ কমবে। পাশাপাশি প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে সরকার এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ভূমিকা রাখার আহ্বান তাদের।

উখিয়া অধিকার বাস্তবায়ন কমিটির সমন্বয়ক ইমরুল কায়েস চৌধুরী বলেন, আমরা আশা করব সরকার ও বিশ্বনেতারা মিলে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন করবে।
আর জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানালেন, কোনো রকম চাপ নয়, শুধুমাত্র স্বেচ্ছায় যারা যেতে রাজি তাদেরকেই ভাসানচরে স্থানান্তর করা হচ্ছে। সেখানে তারা নান্দনিক পরিবেশে তারা জীবনযাপন করবে। ইতোমধ্যে অনেকেই স্বেচ্ছায় সেখানে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছেন। তাদের জন্য প্রস্তুতি আছে বলেও জানান তিনি।
রোহিঙ্গাদের কারণে উজাড় হয়েছে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের প্রায় সাত হাজার একর বনভূমি ও স্থানীয়দের একশ একরের বেশি কৃষি জমি। কাটা হয়েছে চারশ কোটি টাকার গাছ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর