লামায় ভূমি রেজিস্ট্রেশন সমস্যার সমাধানে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান | Daily Cox News
  • বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:৫৬ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

লামায় ভূমি রেজিস্ট্রেশন সমস্যার সমাধানে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান

এম. মিজানুর রহমান, লামা বান্দরবান।
আপডেট সময় : বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০
লামায় ভূমি রেজিস্ট্রেশন সমস্যার সমাধানে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান

বান্দরবান লামায় স্থায়ীভাবে ভূমি রেজিষ্ট্রেশন কর্মকর্তার দায়িত্ব প্রদান, এলআর ফান্ডের নামে বিধিবহির্ভূত অর্থ আদায় বন্ধ ও ভূমি রেজিষ্ট্রেশন কার্যক্রমে জনভোগান্তি লাঘবের দাবীতে জনস্বার্থে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি প্রদান করেন লামা উপজেলার সর্বস্তরের সচেতন নাগরিক সমাজ। বুধবার (১৮ নভেম্বর’২০) বেলা ১১টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রেজা রশীদ এর মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে স্মারকলিপি হস্তান্তর করা হয়।

উল্লেখ্য যে, পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসন বিধিমালা ১৯০০ এর ২০ বিধিবলে বান্দরবান পার্বত্য জেলার রেজিস্ট্রেশন কর্মকর্তার দায়িত্ব জেলা প্রশাসকের ওপর অর্পিত। গত ৩০ জুলাই’২০ জেলা প্রশাসকের অফিস আদেশ মূলে ক্ষমতাপ্রাপ্ত হয়ে উপজেলার একজন সহকারী কমিশনার সপ্তাহে ২দিন রেজিস্ট্রেশন কার্য সম্পাদন করেন। যা অত্যন্ত ভোগান্তির শামিল। একই সাথে সরকারি বিধি বিধানের বাহিরে গিয়ে বায়নানামা সম্পাদনের সময় ১.৫% টাকা এবং সাফ কবলা দলিল সম্পাদনের সময় ১.৫% টাকা চাপ প্রয়োগ করে আদায় করা হয়। যা আর্থিক ক্ষতিসহ চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন জনসাধারণ। সব মিলিয়ে জনভোগান্তি কয়েকগুণ বেড়ে যাওয়ায় সাধারণ জনগণের পক্ষে জনপ্রতিনিধিরা প্রশাসনের নিকট সাপ্তাহে ৫দিন রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পাদন এবং সরকারি রাজস্বের বাহিরে ৩% টাকা আদায় বন্ধ করার দাবিতে বুধবার (১৮ নভেম্বর’২০) সকালে মানববন্ধন কর্মসূচির উদ্যোগ নেয়া হয়।

কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, গেলো ১৬ নভেম্বর’২০ জেলা প্রশাসকের অফিস আদেশ মূলে উপজেলার স্থাবর সম্পত্তি রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পদনের জন্য নিয়োজিত সহকারি কমিশনার কে প্রত্যাহার করে জেলা সদরে গিয়ে দলের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য আদেশ করা হয়েছে।

এদিকে লামা উপজেলা সদর থেকে বান্দরবান জেলা সদরের দূরত্ব ১০০ কিলোমিটার এর অধিক হওয়ায় জেলা প্রশাসকের এমন আদেশের পর ক্রেতা-বিক্রেতা’কে ভূমি হস্তান্তর দলিল সম্পাদনের জন্য জেলা সদরে গমন ও অবস্থানে বিপুল পরিমাণ টাকা ও সময়ের ক্ষতিসাধন হওয়ার ক্ষেত্রে চরম জনভোগান্তি বিরাজমান করছে। বান্দরবান জেলার জনবহুল উপজেলা লামা। এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা থেকে ভূমি রেজিষ্ট্রেশন কার্যক্রম প্রত্যাহারের বিষয়টি খুবই দুঃখজনক বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারণ এই দুর্ভোগ লাঘবে ও নিরসনে বান্দরবান জেলা প্রশাসনকে যথাযথ কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণে সদাশয় নির্দেশ দানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা জামাল পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ও বান্দরবান জেলা প্রশাসক সহ উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা মাধ্যমে সমস্যা নিরসনে উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলে সচেতন নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি সহ সবাইকে আশ্বস্ত করেন।

প্রসঙ্গত, আজকের আহবানকৃত মানববন্ধন কর্মসূচি উপজেলা চেয়ারম্যান এর মধ্যস্থতায় গেলো মঙ্গলবার রাত ৯টায় এক জরুরী মতবিনিময় সভায় প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


ফেইসবুক পেইজ