• সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:২৫ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
উখিয়ার ভালুকিয়ায় কবরস্থান দখলের প্রচেষ্টা উখিয়া থানা পুলিশের অভিযানে ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ এক মাদককারবারী আটক উখিয়ায় অতিদরিদ্রদের কর্মসংস্থান কর্মসূচি (ইজিপিপি+) প্রকল্পের কাজ উদ্ধোধন আমি ক্ষমাপ্রার্থী : চকরিয়ার পৌর কাউন্সিলর রাশেদার বিবৃতি ঘুমধুম পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ দেলোয়ারের বিদায় সোহাগ রানার বরণ অনুষ্ঠান উখিয়ায় র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবা ও স্বর্ণের বারসহ আটক-১ খুনিয়াপালং এর আব্দুল হক ইয়াবাসহ আটক,সহযোগী আব্দুর রহিম পলাতক উখিয়া প্রধান সড়ক চৌরাস্তার মোড়ে জেব্রা ক্রসিং স্থাপনের দাবি খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবদুল হক কোম্পানীর প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা ভাসানচরের পথে উখিয়া ছাড়লেন ৩৭৯ রোহিঙ্গা

সামুদ্রিক মাছ বেচাকেনায় সরগরম

সুজাউদ্দিন রুবেল
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২০
সামুদ্রিক মাছ বেচাকেনায় সরগরম

সাগরে মাছ শিকার শেষে ট্রলার নিয়ে উপকূলে ফিরতে শুরু করেছেন জেলেরা। কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ঘাটসহ উপকূলে জমতে শুরু করেছে মাছ বেচাকেনা। জেলেরা জানান, সাগরে সামুদ্রিক মাছ ধরা পড়লেও বৈরী আবহাওয়ার কারণে কাঙ্ক্ষিত ইলিশের এখনো দেখা মিলেনি। আর চাহিদা বেশি থাকায় সামুদ্রিক মাছের দাম বাড়তি বলে জানিয়েছেন মৎস্য ব্যবসায়ীরা।

নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে মাছ শিকারে যায় কক্সবাজার উপকূলের জেলেরা। এখন ট্রলার নিয়ে উপকূলে ফিরতে শুরু করেছেন তারা। এতে উপকূলের ঘাটগুলোতে বেড়েছে মাছ বেচাকেনার চাপ।
জেলেরা বলছেন, সাগরে রূপচাঁদা, রিটা, সুরমাসহ অন্যান্য সামুদ্রিক মাছ ধরা পড়লেও কাঙ্ক্ষিত ইলিশের এখনো দেখা মিলেনি।
জেলেরা বলেন, ‘মাছ গভীর পানিতে নেমে গেছে, কিছু দেখা যাচ্ছে। শীতের টানে কিছুটা কমে গেছে, আবার বাড়বে।’

কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের পন্টুন সামুদ্রিক মাছে সয়লাব। মৎস্য ব্যবসায়ীদের দাবি, সামুদ্রিক মাছের চাহিদা বাড়ায় দাম একটু বাড়তি।
ব্যবসায়ীরা বলেন, বন্দরে আগে ইলিশ মাছ ৬০০ টাকা কেজি ছিল, আর এখন ৮০০ টাকা। রূপচাঁদা মাছ ৭০০ টাকা কেজি। আজ থেকে আমরা সব ব্যবসায়ী ভাইয়েরা আশা-ভরসা নিয়ে ব্যবসা করছি।
কিছুদিনের মধ্যে মাছের সরবরাহ আরও বাড়বে বলে মনে করেন অবতরণ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক।
কক্সবাজার মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক এহছানুল হক বলেন, সাগর থেকে সব নৌকা ফিরে আসলে তাদের মাছ পাওয়ার ওপর নির্ভর করবে অবতরণের মাত্রা কী পরিমাণ বৃদ্ধি পেতে পারে।
কক্সবাজারে ছোট-বড় মাছ ধরার নৌযান রয়েছে প্রায় ৭ হাজার। আর এসব নৌযানে মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করেন লক্ষাধিক জেলে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর