বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন

ঘুষসহ হাতেনাতে গ্রেপ্তার নৌ-পরিবহন কর্মকর্তা!

ডেস্ক রিপোর্ট
আপডেট বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর, ২০২০
ঘুষসহ হাতেনাতে গ্রেপ্তার নৌ-পরিবহন কর্মকর্তা!

ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে গ্রে’প্তার হয়ে জা’মিনে থাকা নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের বরখাস্ত প্রধান প্রকৌশলী এস এম নাজমুল হককে ভিন্ন অ’ভিযোগে জি’জ্ঞাসাবাদ করেছে দু’র্নীতি দ’মন কমিশন (দুদক)। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে ৪টা পর্যন্ত অনুসন্ধান কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক মো. সালাউদ্দিন নাজমুল হককে জি’জ্ঞাসাবাদ করেন।দুদক পরিচালক প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য বি’ষয়টি জানিয়েছেন। এর আগে নাজমুলকে ঘুষের টাকাসহ গ্রেপ্তার করে দুদক
এবার তার নামে নৌ পরিবহন অধিদপ্তরের দুইটি প্রকল্পে দু’র্নীতি নিয়ে তার সংশ্লিষ্টতার অ’ভিযোগ আসে দুদকে। তার বি’রুদ্ধে নতুন অ’ভিযোগের বি’ষয়ে দুদকের এক কর্মকর্তা জানান, অধিদপ্তরের ‘স্ট্যাবলিস্ট অব গ্লোবাল মেরিটাইম ডিস্ট্রেস অ্যান্ড সেফটি সিসটেম’ এবং ‘ইন্টিগ্রেটেড মেরিটাইম নেভিগেশন সিস্টেম’ নামে দুই প্রকল্পে অনিয়ম- দু’র্নীতি হয়েছে। “এতে প্রধান চাবিকাঠি নেড়েছিলেন দুদকের হাতে ঘুষের পাঁচ লাখ টাকাসহ আ’টক এই নাজমুল হক। এই অনিয়মের সাথে আরও কয়েকজন জ’ড়িত রয়েছেন।”

এর আগে ২০১৮ সালের এপ্রিলে ফাঁদ পেতে রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকার একটি হোটেল থেকে ঘুষের পাঁচ লাখ টাকাসহ নাজমুল হককে গ্রে’প্তার করেছিল দুদক। ওই দিনই তার বি’রুদ্ধে রাজধানীর শাহবাগ থানায় মা’মলা করে দুদক। এর পাঁচ মাস পর জা’মিনে বেরিয়ে আসেন নাজমুল হক। এরপর একই বছরের ১৮ অক্টোবর আ’দালতে অভিযোপত্র দাখিল করেন ত’দন্ত কর্মকর্তা ও দুদকের সহকারী পরিচালক আবদুল ওয়াদুদ। ওই মা’মলা নাজমূলের বি’রুদ্ধে অ’ভিযোগ, মেসার্স সৈয়দ শিপিং লাইনসের এমভি প্রিন্স অব সোহাগ নামীয় যাত্রীবাহী নৌযানের রিসিভ নকশা অনুমোদন এবং নতুন নৌযানের নামকরণের অনাপত্তিপত্রের জন্য নাজমুল হকের কাছে গেলে তিনি ১৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবি করেন।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বি’ষয়টি দুদককে অবহিত করেন। এরপর কমিশনের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক নাসিম আনোয়ারে নেতৃত্বে ঘুষের টাকার কিস্তি বাবদ পাঁচ লাখ টাকাসহ তিনি গ্রে’প্তার হন


এ জাতীয় সংবাদ