শিরোনাম :
রোহিঙ্গাদের থানা নোয়াখালী ভাসানচর রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক নিয়ে চীনের সন্তোষ উখিয়া বালুখালী ক্যাম্পের তৈয়ব ও তার সহযোগী বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ আটক উখিয়ায় মোটরসাইকেল সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেত্রী রোমানার ভাই গুরুতর আহত লিংক রোডে র‌্যাবের হাতে ইয়াবা নিয়ে হোয়াইক্যংয়ের দুই মাদক কারবারীসহ আটক-৩ ভাসানচরে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে স্বস্তি বোধ করছেন রোহিঙ্গারা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অপহৃতের সঙ্গে নারীর ‘আপত্তিকর ছবি’ তুলে রাখতো তারা বছরের মাঝামাঝি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রাইভেট সিএনজি বাণিজ্যিকভাবে চালানো যাবে না : হাইকোর্ট বাহারছড়া কোস্টগার্ডের অভিযানে সাড়ে ১৭হাজার মিটার কারেন্ট জাল আগুনে পুড়িয়ে বিনষ্ট
বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন

বিজয় দিবসে ১৬ বারের মতো বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিচ্ছেন লিপটন

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি:
আপডেট বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০
বিজয় দিবসে ১৬ বারের মতো বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিচ্ছেন লিপটন

আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। ১৬তম বারের মতো বঙ্গোপসাগরের সাঁতার দিতে যাচ্ছেন লিপটন সরকার। টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথের এ স্রোতধারাটি নাম বাংলা চ্যানেল। টানা ১৫ বারের মতো এ চ্যানেল জয় করার রেকর্ডধারি একমাত্র সাঁতারু তিনি।

বিজয় দিবসের দিন সাঁতার প্রসঙ্গে লিপটন সরকার বলেন, তার এবারে সাঁতার বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ সূর্যসন্তানের স্মৃতির প্রতি উৎসর্গ করতে চান।

২০০৬ সাল থেকে প্রতিবছর তিনি সাঁতরে এই চ্যানেল অতিক্রম করছেন। সর্বশেষ গত ৩০ নভেম্বর ১৫তম ফরচুন বাংলা চ্যানেল সাঁতার ২০২০–এ অংশ নিয়ে টানা ১৫ বারের মতো এ চ্যানেলের একমাত্র জয়ী করার রেকর্ড গড়েছেন তিনি। বিজয় দিবসের সাঁতারে নিজেই নতুন রেকর্ড গড়তে যাচ্ছেন।

এবার এ সাঁতারের আয়োজন করছে ষড়জ অ্যাডভেঞ্চার ও এক্সট্রিম বাংলা। বাংলা চ্যানেল সাঁতার শুরু হয় টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ জেটি থেকে। ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার দূরত্ব পাড়ি দিয়ে সাঁতারুকে পৌঁছাতে হয় সেন্টমার্টিন দ্বীপে। লিপটন সরকার এবার সাঁতার শুরু করবেন টেকনাফে শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিমপাড়া সমুদ্র সৈকত থেকে।

সেখান থেকেও সেন্ট মার্টিনের দূরত্ব ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার। বুধবার সকালে তিনি সাঁতার শুরু করেন।
এ চ্যানেলে নিজের ১৬তম সাঁতার নিয়ে লিপটন সরকার আরও বলেন, ‘১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসকে স্মরণীয় করে রাখতে এবং বাংলা চ্যানেলে দূরপাল্লার সাঁতারে জনপ্রিয় করতে আমার এই উদ্যোগ। আমরা চাই এ ধরনের অ্যাডভেঞ্চারে তরুণ প্রজন্ম আরও বেশি করে আগ্রহী হয়ে উঠুক। এ ধরনের খেলাধূলায় থাকলে সুস্বাস্থ্য যেমন নিশ্চিত হবে, তেমনি মাদকাসক্তিসহ ভয়াবহ নেশা থেকে তরুণ প্রজন্ম দূরে থাকবে।


এ জাতীয় সংবাদ