শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন

২৩ হাজার বন্দিকে মুক্তি দিচ্ছে মিয়ানমারের সেনা সরকার

আন্তজার্তিক ডেস্ক
আপডেট শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
২৩ হাজার বন্দিকে মুক্তি দিচ্ছে মিয়ানমারের সেনা সরকার

২৩ হাজারেরও বেশি কারাবন্দিকে মুক্তি দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে মিয়ানমারের নির্বাচিত সরকার উৎখাত করে ক্ষমতা দখলকারী সেনা সরকার। শুক্রবার সাধারণ ছুটির দিনে সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইং বন্দিদের মুক্তির ঘোষণা দিয়েছেন। দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল নিউ লাইট অব মিয়ানমার এই খবর জানিয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে জান্তা সরকার ক্ষমতা দখলের পর থেকেই মিয়ানমারে ব্যাপক বিক্ষোভ হচ্ছে। রাজপথে নেমে আসছে হাজার হাজার মানুষ। বিক্ষোভ দমনে পুলিশও কঠোর হয়ে উঠতে শুরু করেছে। সেনা অভ্যুত্থানের দিনেই নির্বাচিত নেত্রী অং সান সু চিসহ উর্ধ্বতন নেতাদের গ্রেফতারের পর বহু বিক্ষোভকারীকেও আটক করা হচ্ছে।

শুক্রবার সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইংয়ের ঘোষণায় বলা হয়েছে, ‘শান্তি, উন্নয়ন ও শৃঙ্খলাসহ মিয়ানমারকে একটি নতুন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে বন্দিদের সভ্য নাগরিক হিসেবে গড়তে, জনগণকে সন্তুষ্ট করতে এবং মানবিক ও সহানুভূতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে বন্দিদের সাজা মওকুফ করা হয়েছে।’

ওই ঘোষণায় জানানো হয় মোট ২৩ হাজার ৩১৪ জন বন্দিকে মুক্তি দেওয়া হবে। এছাড়া আলাদা এক নোটিশে ৫৫ জন বিদেশি নাগরিককেও মুক্তি দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। দুটি আদেশেই স্বাক্ষর করেছেন সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইং।

বৃহস্পতিবার টানা ষষ্ঠ দিনেও সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে রাজপথে নেমেছেন বিক্ষোভকারীরা। রাজধানী নেপিদোতে কয়েক হাজার শ্রমিক অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন। ইয়াঙ্গুনে চীনা দূতাবাসের সামনেও কয়েকশ’ বিক্ষোভকারী জড়ো হন। তাদের অভিযোগ চীন অস্বীকার করলেও সামরিক জান্তাকে সমর্থন করে যাচ্ছে বেইজিং। দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে চীন।

এদিকে, জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা শুক্রবার মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের নিন্দা জানিয়ে একটি বিবৃতি পাস করার উদ্যোগ নিচ্ছে। খসড়া প্রস্তাবটি উত্থাপন করবে ব্রিটেন ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন। তবে কূটনীতিকরা বলছেন, চীন ও রাশিয়া এতে বাধা দিতে পারে। তারা চাইবে বিবৃতিকে দুর্বল করতে।


এ জাতীয় সংবাদ