• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১০:১৫ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
রামু প্রেসক্লাবের নবগঠিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি সভা কক্সবাজারে জব্দকৃত ৩শত কোটি ৯৬ লাখ টাকার মাদক ধ্বংশ উখিয়ায় শেড-এর উদ্যোগে শিশু উৎসব উদযাপন কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভাসমান লাশ রত্নাপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগে রেকর্ড, টানা ৬ষ্ট বার সভাপতি আছহাব উদ্দিন মেম্বার উখিয়ায় সামাজিক সম্প্রীতি বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভারত থেকে অবৈধপথে বাংলাদেশে আসছে রোহিঙ্গারা উখিয়ায় পাহাড় নিধন ও বনাঞ্চল উজাড়, শতাধিক বহুতল ভবন নির্মাণ চলছে আওয়ামীলীগের মাঠজরীপে আছহাব উদ্দিন মেম্বার আবারো জনপ্রিয়তার শীর্ষে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হাসপাতাল নয়, যেনো এক একটি রোহিঙ্গা প্রজনন কেন্দ্র।

গুগলে বিপুল বিনিয়োগ করছে জার্মানি

রিপোর্টার নাম :
আপডেট সময় : বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১
12e5afc8fc9d9567725e69d29d4f819eefd85cb1f803dfa7

 

 

কার্বনমুক্ত জ্বালানি সরবরাহে ও ডাটা সেন্টার সম্প্রসারণে জার্মানিতে ১২০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে গুগল। এই বিনিয়োগ জার্মানির অর্থনীতি ও প্রযুক্তি খাতের অবকাঠামো শক্তিশালী করতে বিরাট ভূমিকা রাখবে মনে করছে জার্মান সরকার।

 

এবার জার্মানিতে ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার ঘোষণা দিয়েছে ইন্টারনেট জায়ান্ট গুগল। ২০৩০ সালের মধ্যে তাদের এই অর্থ ব্যয় হবে দেশটিতে কার্বনমুক্ত জ্বালানি উৎপাদনে এবং গুগলের ক্লাউড কম্পিউটিং অবকাঠামো সম্প্রসারণে।

গুগল বলছে, আগামীতে জার্মানিতে তাদের ক্লাউড কম্পিউটিং সেন্টারগুলো সচল রাখতে বছরে ১৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কিনতে হবে, যা আসবে বর্তমানে দেশটিতে উৎপাদনে থাকা ২২টি উন্ড পার্ক থেকে।

গুগলের ইউরোপীয় অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফিলিপ জাস্টিস বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে আমাদের সব ডাটা সেন্টার সচল রাখতে কার্বনমুক্ত জ্বালানির ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই। বর্তমানে যে জ্বালানি ব্যবহার করি তা প্রায় ৮০ ভাগ কার্বনমুক্ত কিন্তু একশ’ ভাগ নয়। আমরা আমাদের ক্লাউড কম্পিউটিং সেন্টার সম্প্রসারণেও এই অর্থ ব্যয় করব।

বুধবার এই চুক্তি সই শেষে ব্রান্ডেনবার্গের অর্থমন্ত্রী জর্জ স্টেইনবেস বলেন, জার্মানির ডিজিটাল অর্থনীতি ও প্রযুক্তিখাতকে শক্তিশালী করতে বড় ভূমিকা রাখবে গুগলের এই বিনিয়োগ।

তিনি আরও বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে আমাদের ছোট আকারের অবকাঠামোকে বড় করে তুলবে এই বিনিয়োগ। গুগলের ডাটা সেন্টারের সম্প্রসারণ হলে তা সচল রাখতে অনেক হার্ডওয়্যারের দরকার হবে। এ ছাড়া ব্রান্ডেনবার্গেও গুগলের ডাটা সেন্টার চালুর ব্যাপারে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। তাদের অবশ্যই অনেক সার্ভিস প্রোভাইডারেরও দরকার হবে।

এর আগে জার্মানির অর্থমন্ত্রী পিটার আল্টমেয়ার জানিয়েছিলেন, দেশটিতে ডিজিটাল অবকাঠামো গড়ে তোলা এবং সবুজ জ্বালানির ক্ষেত্রে তার সরকারের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর