• বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভাসমান লাশ রত্নাপালং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগে রেকর্ড, টানা ৬ষ্ট বার সভাপতি আছহাব উদ্দিন মেম্বার উখিয়ায় সামাজিক সম্প্রীতি বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত ভারত থেকে অবৈধপথে বাংলাদেশে আসছে রোহিঙ্গারা উখিয়ায় পাহাড় নিধন ও বনাঞ্চল উজাড়, শতাধিক বহুতল ভবন নির্মাণ চলছে আওয়ামীলীগের মাঠজরীপে আছহাব উদ্দিন মেম্বার আবারো জনপ্রিয়তার শীর্ষে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হাসপাতাল নয়, যেনো এক একটি রোহিঙ্গা প্রজনন কেন্দ্র। উখিয়ায় স্পেশাল সার্ভিসের ধাক্কায় টমটম বিলে আহত-৪ উখিয়া করইবনিয়ার নাছির ৩ কোটি টাকার ইয়াবা নিয়ে বিজিবির হাতে আটক একজন শিক্ষিত মায়ে-ই পারে একটি শিক্ষিত জাতি উপহার দিতে-হামিদুল হক চৌধুরী

সিএএ নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ বিজেপিতে দুই ধারা

রিপোর্টার নাম :
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২২
prothomalo bangla 2022 01 26f7775d 1140 4b8c a9d4 493ed3797886 CAA Protest 2

গতকাল সোমবার বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর বলেছেন, তাঁরা চান এ আইন অবিলম্বে কার্যকর করা হোক। এর জন্য তাঁরা অনন্তকাল অপেক্ষা করতে চাইছেন না। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সরকার তিনবার এ আইন কার্যকর করতে সময় নিয়েছেন। এবার তাঁরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি করবেন, কবে কেন্দ্রীয় সরকার এ আইন কার্যকর করবে।

শান্তনু ঠাকুর আরও বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকায় তাঁরা সন্তুষ্ট নন। মতুয়াদের গড়া মতুয়া মহাসংঘ একটি বড় ধর্মীয় সংগঠন। উদ্বাস্তু সমাজের ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ মতুয়া সম্প্রদায়ের সদস্য রয়েছেন এই সংগঠনে। সিএএ আজ তাঁদের কাছে বড় ইস্যু। সেইভাবে মতুয়া সম্প্রদায়ের কাছে বার্তা দিতে হবে।

বিজেপির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি দিলীপ ঘোষ গতকাল বলেছেন, ‘বিজেপি আমলেই সব উদ্বাস্তু নাগরিকত্ব পাবে। আপনাদের আর কয়টা দিন অপেক্ষা করতে হবে। বিজেপিই প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এই সিএএ কার্যকর করার জন্য।’ তিনি বলেন, মতুয়া সংগঠনের পাঁচ লাখ সক্রিয় সদস্য রয়েছেন। আর সাধারণ সদস্যের সংখ্যা ২০ লাখ।

গত রোববার কলকাতার বিজেপির কার্যালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপির রাজ্যের প্রধান মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য বলেছেন, ভারতে অবিলম্বে সিএএ কার্যকর করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বিজেপি। বিজেপি মতুয়াদের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে বলতে চাইছে, ২০২৪ সালের মধ্যে ভারতে সিএএ কার্যকর হবে। এটা বিজেপির মূল লক্ষ্য।

শনিবার উত্তর চব্বিশ পরগনার ঠাকুরনগরের ঠাকুরবাড়িতে ‘অল ইন্ডিয়া মতুয়া মহাসংঘে’র এক বৈঠকে দাবি ওঠে, অবিলম্বে এ রাজ্যে কার্যকর করতে হবে সিএএ। যদি বিজেপি সরকার এ দাবি মেনে না নেয়, তবে এ আইন কার্যকর করার জন্য তীব্র আন্দোলন করবে মতুয়ারা। এই হুমকির পর রোববারই কলকাতার রাজ্য বিজেপি দপ্তরে এক সাংবাদিক বৈঠকে দলের প্রধান মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য জানিয়ে দেন, কেন্দ্রীয় বিজেপি সরকার এ আইন কার্যকর করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। ২০২৪ সালের মধ্যে ভারতে কার্যকর হবে সিএএ।

ভারতের বিতর্কিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন বা সিএএ এর আগে সংসদে পাস হলেও সেই আইন এখনো কার্যকর করতে পারেনি বিজেপি সরকার। তাদের প্রতিশ্রুতিমতো এ আইন কার্যকর করতে চাইলেও তা বিরোধীদের বাধার মুখে কার্যকর করতে পারেনি এখনো। যদিও বিজেপি-বিরোধীরা দাবি করেছে, পশ্চিমবঙ্গ ও আসামে বিভাজনের রাজনীতি করার জন্য এ আইন এনেছে বিজেপি। কিন্তু বিজেপি এ আইন পাস করে যে কৌশল নিয়ে সাম্প্রদায়িক বিভাজনের অস্ত্র তুলে নিয়েছিল, কার্যত তা এখনো সফল হয়নি। বিজেপির সেই কৌশলও কাজে লাগেনি।

পশ্চিমবঙ্গের প্রবীণ কংগ্রেস নেতা ও সাবেক রাজ্য সভাপতি সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য বলেছেন, আসলে এ আইন আনার পর বিজেপি বুঝে গেছে, হিন্দু, মুসলিম—সবাই সিএএর বিপক্ষে। এবার ভোটে সে চিত্রই ফুটে উঠেছে।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ লক্ষ্যে সময় চেয়েছে সংসদের দুই কক্ষ রাজ্যসভা ও লোকসভায় এ নিয়ে গঠিত স্থায়ী সংসদীয় কমিটির কাছে। ফলে তৃতীয়বারের জন্য আরও তিন মাসের সময় বাড়িয়ে দিয়েছে দুই সংসদের আইনবিষয়ক স্থায়ী কমিটি। এর আগে অবশ্য দুই দফায় ছয় মাস সময় বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এবার বাড়ানো হলো তৃতীয়বারের জন্য। এ আইন বাতিলের দাবিতে কলকাতা, দিল্লিসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিজেপি–বিরোধীরা রাস্তায় নেমে এ আইন বাতিলের তীব্র আন্দোলন শুরু করে। কলকাতা ও দিল্লির আন্দোলনের জেরে উত্তাল হয়ে ওঠে গোটা দেশ। কিন্তু করোনা সংক্রমণের কারণে এ আন্দোলন থিতিয়ে পড়লেও এখনো গোটা দেশে এ আইন বাতিলের দাবিতে আন্দোলন জারি রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর