• বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম
উখিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আর্মড পুলিশের এএসআই নিহত আওয়ামীলীগ বাংলাদেশের রাজনীতিতে সবসময়ই অত্যন্ত শক্তিশালী ও গুরুত্বপূর্ণ দল -কৃষিমন্ত্রী জয়পুরহাটে দুই শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তির কারাদণ্ড মৌলভীবাজারে শ্রীমঙ্গলে রেলের জমি উদ্ধারে বাধা, রেলের এক্সাভেটরে দুর্বৃত্তের আগুন শেষ হলো সংসদের চতুর্দশ অধিবেশন দেশে করোনায় আরও ৫১ জনের মৃত্যু ইভ্যালির সিইও রাসেল গ্রেপ্তার প্রবাস থেকে স্বামী আসার খবরে প্রেমিকের হাত ধরে পালালো এক সন্তানের জননী কোটবাজারে চাকবৈঠার ইব্রাহিম বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ র‍্যাবের হাতে আটক রত্নাপালং ইউপি নির্বাচন : চেয়ারম্যান পদে জনপ্রিয়তার শীর্ষে ইমাম হোসেন

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাসহ সংখ্যালঘুদের নির্যাতন নিয়ে মানবাধিকার কাউন্সিলে বাংলাদেশের উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট সময় : শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
মিয়ানমারে রোহিঙ্গাসহ সংখ্যালঘুদের নির্যাতন নিয়ে মানবাধিকার কাউন্সিলে বাংলাদেশের উদ্বেগ

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাসহ অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায় দীর্ঘদিন ধরে নির্যাতন, বৈষম্য ও অত্যাচারের শিকার হচ্ছে; তাদের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ। শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলে মিয়ানমারে সমস্যার কারণে উদ্ভূত মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে এক বিশেষ সেশনে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদূত মো. মোস্তাফিজুর রহমান এই বক্তব্য পেশ করেন।

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেওয়াসহ কফি আনানের নেতৃত্বে গঠিত রাখাইন কমিশন রিপোর্টের পূর্ণ বাস্তবায়ন এই সমস্যার সমাধানে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একই সঙ্গে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো চরম নির্যাতনের বিচার ও দায়বদ্ধতা সমান গুরুত্বপূর্ণ।

বক্তব্যে জানানো হয়, বাংলাদেশে অবস্থিত রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও সম্মানজনক প্রত্যাবাসনের জন্য মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকার জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। এছাড়া, মানবাধিকার ও মানবিক সমস্যার টেকসই সমাধানের জন্য প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া দ্রুত শুরু হবে বলে আশা করে বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া গঠনমূলকভাবে সংযুক্ত হওয়া।

বক্তব্যে আরও বলা হয়, গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে প্রচার করে বাংলাদেশ এবং মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা ও সাংবিধানিক প্রক্রিয়া সমুন্নত থাকবে বলে বাংলাদেশ আশা করে। মিয়ানমারে শান্তি ও স্থিতিশীলতা শুধু ওই দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয় বরং গোটা অঞ্চলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আশাকরা হচ্ছে আজকের বিশেষ অধিবেশন শেষে একটি রেজুলেশন গ্রহণ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর